লঞ্চ থেকে মেঘনা নদীতে ফেলে দেয়া যুবক উদ্ধার

এস কে রঞ্জন: বরগুনাগামী পূবালী-১ লঞ্চ থেকে মেঘনা নদীতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছেন নাজমুল হাসান (১৮) নামের এক যুবককে। ঢাকা থেকে আসার পথে লঞ্চ বশে পরিচয় হয় বরগুনা জেলার তালতলী থানার রুবেলের সাথে। রাত সাড়ে আটটার দিকে নাজমুল আর রুবেল লঞ্চের পিছনে যায়। এসময় রুবেল বলে তোমার মোরাইলটা একটু দিবে আমি আমার মার সাথে কথা বলবো ,তখন নাজমুল মোবাইলটা দিয়ে পেছন ফিরলে তাকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে ফেলে দেয় রুবেল। উদ্ধার হওয়া নাজমুল হাসান জানান। ঢাকা থেকে কলাপাড়াগামী এমভি সুন্দরবন-৬ লঞ্চ ১৫ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে কর্তৃপক্ষ দেখতে পায় ভাসমান অবস্থায় একটি লোককে। প্রায় ত্রিশ মিনিট চেষ্টার পর তাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় লঞ্চের যাত্রী ও দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা। উদ্ধারকৃত যুবককে শুক্রবার সকালে পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় নিয়ে আসা হয়। এ ঘটনায় পূবালী-১ লঞ্চ কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত রুবেল কে আটক করে বরগুনা থানায় সোপর্দ করেছে। উদ্ধার হওয়া নাজমুল হাসান বরগুনা সদর থানার পরীরখাল এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে। সুন্দরবন -৬ লঞ্চের কেরানী মোশারফ হোসেন জানান, রাত নয়টারদিকে হঠাৎ মেঘনা নদীর মল্লিকপুর মোহনায় লঞ্চের সার্চ লাইটের আলোতে এক যুবককে নদীতে ভাসতে দেখে কিছু যাত্রী তাদের জানায়। এসময় লঞ্চের গতি রোধ করে প্রায় ত্রিশ মিনিট চেষ্টার পর ওই যুবককে নদী থেকে উদ্ধার করতে সক্ষম হন। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ায় সে সুস্থ্য হয়ে উঠে। শুক্রবার সকালে উদ্ধার হওয়া যুবকের পরিবারের সাথে কথা বলে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম জানান, পূবালী-১ লঞ্চ থেকে রুবেল নামের এক যুবককে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তারা উদ্ধার হওয়া যুবকের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। বর্তমানে দুজনই বরগুনা থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা করা হবে নাজমুলের ভাই ফেরদেীস জানায়।