ঘরে ঢুকে হাত-পা বেঁধে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, দু’জন কারাগারে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নের চরমার্গারেট গ্রামে ঘরে ঢুকে এক গৃহবধূকে নির্যাতন ও গণধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। শনিবার রাতে এ ঘটনার বিবরণ দিয়ে রাঙ্গাবালী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর স্বামী মামলাটি করেন। অভিযুক্ত আসামিরা হলেন শাকিল শরিফ (২২), আল হাদি (২২) ও আরিফ চৌকিদার (২১)।

ইতোমধ্যে প্রধান অভিযুক্ত শাকিল ও আল হাদীকে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার সকালে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজরে প্রেরণ করা হয়। তবে অপর আসামি আরিফ এখনো পলাতক রয়েছেন। তার সন্ধান খোঁজা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩ অক্টোবর ভিকটিমের ৯ বছরের ছেলে এবং আসামি শাকিলের আট বছরের ছোট ভাইয়ের ঢিল ছোঁড়াকে কেন্দ্র করে মতবিরোধ হয়। শুক্রবার সকালে বিষয়টি সালিশে মিমাংসা হলেও সেই সিদ্ধান্ত শাকিলের মনপুত হয়নি। ওই ঘটনার জের ধরে আসামি শাকিলসহ অন্যরা শুক্রবার রাতে হঠাৎ ঘরে ঢুকে তার স্ত্রীর হাত- মুখ ওড়না দিয়ে পেচিয়ে টেবিলের সাথে বেঁধে শরীরিক নির্যাতন করে। নির্যাতনে তার বাম হাতের হাড় ভেঙে যায়। একপর্যায় আসামিরা তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে ঘরে থাকা দেড় লক্ষাধিক টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার লুট করে তাকে বেঁধে ফেলে রেখে যায়।

ঘটনার পর বাড়ি গিয়ে হাত-মুখের বাঁধন খুলে স্ত্রীর কাছ থেকে এসব তথ্য জেনেছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করেন বাদি। ঘটনার পর অসুস্থ অবস্থায় শনিবার সকালে ওই গৃহবধূকে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী আহম্মেদ জানান, দুই আসামিকে আদালতে সোপর্দ করে জেলহাজতে পাঠানো হয়ছে। বাকি এক আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।