লোহা গলানোর পাত্র বিস্ফোরণ: দগ্ধ আরও ২ শ্রমিকের মৃত্যু, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে স্টিল মিলে লোহা গলানোর পাত্র (ভাট্টি) বিস্ফোরণে আরও দুই শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) রাতে ঢাকা মেডিকেলের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

এ নিয়ে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ আরও দুই শ্রমিক রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি সময় নিউজকে জানান, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাকিল ও আবু সিদ্দিক নামক আরও দুই শ্রমিক শুক্রবার রাতে মারা গেছেন। গলিত লোহার আগুনে পুড়ে তাদের দুজনের শরীরের শতভাগ দগ্ধ হয়েছিল। স্বজনদের কাছে তাদের লাশ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

নিহত মো. শাকিল (২০) লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বাংলাবাড়ী এলাকার আবদুস সোবহানের ছেলে ও আবু সিদ্দিক (৩০) কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী এলাকার টিপু শেখের ছেলে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

এর আগে বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেলে নেয়ার পর মিজানুর রহমান (৪২) ও শুক্রবার সকালে শেখ শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ফাহিম (২৫) নামে আগুনে দগ্ধ দুই শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বাংলাবাড়ী এলাকার বাউরা এলাকার সুন্দর আলীর ছেলে রফিক মিয়া (৪৫) এবং রহমতপুর এলাকার রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে মো. রাজু (৪০) নামের দুই শ্রমিক দগ্ধ হয়ে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে দগ্ধ ছয়জনকে হাসপাতালে আনার পর চারজনকে ভর্তি করা হলেও দুজনকে তাদের স্বজনরা নিজেদের দায়িত্বে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান। সেখানেই তাদের চিকিৎসা চলছে বলে জানতে পেরেছি। তাদের মধ্যে রাজুর শরীরের শতভাগ ও রফিকের ১৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটায় উপজেলার বরপা এলাকার প্রিমিয়ার স্টিল অ্যান্ড রি-রোলিং মিল কারখানায় শ্রমিকরা কাজ করার সময় লোহা গলানোর পাত্র (ভাট্টি) বিস্ফোরণ হয়ে ছয় শ্রমিক দগ্ধ হন। দগ্ধ শ্রমিকরা কারখানাটির ফার্নিশ বিভাগের অপারেটর ছিলেন।

এ ঘটনায় শনিবার দুপুর একটা পর্যন্ত কোনও মামলা হয়নি বলে নিশ্চিত করে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান সময় নিউজকে বলেন, স্বজনদের পক্ষ থেকে এখনো কেউ মামলা করেনি। হতাহতরা কেউই এখানকার বাসিন্দা নয়। সবাই দূরদূরান্ত জেলার বাসিন্দা। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে তাদের স্বজনরা সরাসরি ঢাকা মেডিকেলে চলে যান।

ওসি মাহমুদুল হাসান আরও বলেন, যেহেতু স্বজনদের পক্ষ থেকে কেউ মামলা করতে চাচ্ছেন না, তাই পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করবে। পরবর্তীতে তদন্তসাপেক্ষে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।