বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জাতীয় পরিচয়পত্রে (স্মার্ট কার্ড) উল্লিখিত জন্মতারিখ অনুযায়ী ছেলের চেয়ে মা বড় মাত্র ১০ মাসের। আর বাবা ৪ বছরের! স্মার্ট কার্ডে এমন ভুলের ঘটনাটি ঘটেছে জয়পুরহাটের মোছলিম উদ্দীন, তার স্ত্রী মোছা. ছুরতন বেগম ও তাদের বড় ছেলে মো. সোবহানের।

তারা স্মার্ট কার্ডের এমন ভুল সংশোধন করতে গিয়ে পড়েছেন সমস্যায়। নানান কাগজপত্র জমা দেওয়ার ঝামেলায় পড়ে বয়স সংশোধন করা হয়ে ওঠেনি। এর কারণে তারা বঞ্চিত হচ্ছেন নাগরিক সুবিধা থেকে।

মোছলিম উদ্দিনের বাড়ি জেলার কালাই উপজেলার বালাইট পূর্বপাড়া গ্রামে। তিনি ভিক্ষাবৃত্তি করে স্ত্রীকে নিয়ে কালাই পৌরশহরের কলেজপাড়া মহল্লার একটি বাড়িতে থাকেন। অপরদিকে বড় ছেলে ভ্যানচালক সোবহানও থাকেন তাদের পাশের বাড়িতে।

মোছলিম উদ্দীন ও ছুরতন দম্পতির চার ছেলে। মোছলিমের স্মার্ট কার্ডের নম্বর ৪৬০৮১২৯১১২। তাতে তার জন্মতারিখ ২৮ অক্টোবর, ১৯৫৯ লেখা আছে। ছুরতনের স্মার্ট কার্ডের নম্বর ৭৩০৮১৪২৫৪১। এতে তার জম্মতারিখ ২৪ এপ্রিল, ১৯৬২ লেখা। তাদের বড় ছেলে সোবহানের স্মার্ট কার্ডের নম্বর ১৯০৮০২৬৫৯২। তার জন্মতারিখ ১ জুন, ১৯৬৩। তিনজনের জন্মতারিখ আর সাল লক্ষ করলেই এই অসঙ্গতিটা চোখে পড়ে।

মোছলিম উদ্দীন গণমাধ্যমকে জানান, আমার আসল বয়স ৭৫ বছরেরও বেশি। সরকার স্মার্ট কার্ড করে দিছে, সেটিতে বয়স কম দিয়েছে। কার্ডে বয়স কম থাকার জন্য আমি বয়স্ক ভাতার কার্ড পাইনি। আবার কার্ডে আমার ছেলের বয়স বেশি দিয়েছে।

ছুরতন বেগম বলেন, আমার চোখে ঠিকমতো দেখি না। ভাতার কার্ডের জন্যে মেম্বার-চেয়ারম্যানের কাছে গেছিলাম। কার্ড দেখে বয়স হয়নি বলে আমার ভাতার কার্ড করে দেইনি। বয়স ঠিক করার জন্যে অফিসে গেলে আমার বিয়ের কাবিন চেয়েছে। এখন আমি বিয়ের বিয়ের কাবিন কোথায় পাবো?

এ বিষয়ে জয়পুরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, যদি কারও জাতীয় পরিচয়পত্রে বয়স ভুল থাকে, তাহলে তিনি বয়স সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তাকে তার সঠিক বয়স প্রমাণে জন্য বিয়ের কাবিননামাসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। এ ছাড়া বয়স সংশোধন হবে না।