বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রংপুরে আগুন পোহাতে গিয়ে ২৪ ঘণ্টায় দগ্ধ হয়ে ২ নারী মারা গেছেন। তাদের মধ্যে একজন অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। গত এক সপ্তাহে ২১ জন আগুনে পোড়া রোগী ভর্তি হন বার্ন ইউনিটে। এর মধ্যে মারা যান ৬ জন। রংপুর মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিচ্ছেন আরো ১৫ জন।

প্রতিবছরই তীব্র শীত থেকে বাঁচতে আগুনের কুণ্ডলি জ্বালিয়ে বা চুলার আগুনে উত্তাপ নিতে গিয়ে দগ্ধ হয় রংপুর অঞ্চলের হতদরিদ্র অনেক মানুষ।

রোববার দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আগুনে পোড়া পীরগাছা উপজেলার ইকরচালি গ্রামের গর্ভবতী ২২ বছরের লিসা আক্তারের মৃত্যু হয়। একইদিন রাতে লালমনিরহাট সদরের রাণি রায় নামে আরও এক গৃহবধু মারা যান।

আগুনে পোড়া শরীর নিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৩ জন করে আসছেন রংপুর মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে।

রংপুর মেডিকেলের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. এমএ হামিদ পলাশ জানান, জীবন ঝুঁকি নিয়ে আগুন পোহাতে নিষেধ করা হলেও সচেতনতা সৃষ্টি না হওয়ায় বন্ধ হচ্ছে না এ মৃত্যু সংখ্যা।

তবে গত বছর যে হারে আগুনে পুড়ে মানুষ হতাহত হয়েছিলো সে তুলনায় এ বছর কম হয়েছে বলে জানা গেছে।