বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দেশে করোনার ভ্যাকসিনের অনলাইন নিবন্ধন ও যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণে একটি সুরক্ষা অ্যাপ প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। সোমবার (১৮ জানুয়ারি) সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি জানান, আগামী ২৫ জানুয়ারি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে অ্যাপটি হস্তান্তর করা হবে। এছাড়াও তিনি ভ্যাকসিন সম্পর্কিত কোন গুজবে কান না দেয়ার আহ্বানও জানান।

করোনার ভ্যাকসিন নিতে হলে প্রথমে এই অ্যাপে নিজেদের তথ্য দিয়ে তালিকাভুক্ত করতে হবে। সেখান থেকে সরকার ভ্যাকসিন গ্রহীতার সম্পর্কে যেমন সব তথ্য পাবেন, তেমনি যারা ভ্যাকসিন নেবেন, তারাও পরবর্তী আপডেট সম্পর্কে জানতে পারবেন।

গত ১১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় আগামী ২১ থেকে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে দেশে প্রথম ধাপে সেরামের ৫০ লাখ ডোজ করোনা ভ্যাকসিন দেশে এসে পৌঁছাবে এবং ভ্যাকসিনের রেজিস্ট্রেশন শুরু হবে আগামী ২৬ জানুয়ারি থেকে।

ভ্যাকসিনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর মাথা ঝিমঝিম করা, ব্যথা, বমি বমি ভাব দেখা দিতে পারে। তবে সেটা ২ থেকে ৩ ভাগের বেশি না। যে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রোধে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম কাজ করবে বলেও তিনি জানান।

দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে ২৮টি জেলায় ভ্যাকসিন সংরক্ষণাগার তৈরির কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সাড়ে ৭ হাজার কেন্দ্র থেকে ভ্যাকসিন দেয়া হবে। এছাড়াও প্রথম দফায় যারা ভ্যাকসিন পাবেন তাদের তালিকাও প্রকাশ করে অধিদপ্তর।