রায়পুরের রাখালিয়া বাজার সিএনজি স্টেশান।

তাবারক হোসেন আজাদ: রায়পুরের বর্ডার বাজার থেকে লক্ষ্মীপুর সদরের চন্দ্রগঞ্জ পর্যন্ত ১১০ কোটি টাকা ব্যায়ে প্রায় ৪০ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সংস্কারের ১১ মাস যেতে না যেতেই বেশ কয়েকটি স্থান ফেটে গিয়ে কার্পেটিং উঠে যাচ্ছে ও বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে, ভেঙে যাচ্ছে রাস্তার বিভিন্ন অংশ।

নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে এমন দায়সারা কাজ করায় স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। সওজ সূত্র জানায়, রায়পুরের বর্ডার বাজার থেকে লক্ষ্মীপুর সদরের গো হাটা পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার নির্মাণের জন্য ৫৮ কোটি ৯৪ লাখ ১৩ হাজার ৫৭ টাকা বরাদ্দ হয়। লক্ষ্মীপুরের গো হাটা থেকে চন্দ্রগঞ্জ বাজার পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণে ৭৪ কোটি ১৬ লাখ ৯৭ হাজার ৬৯ টাকা বরাদ্দ হয়। নতুন মাটি ব্যবহারের জন্য বরাদ্দ রয়েছে আট কোটি ১৯ লাখ ২৭ হাজার ১১৮ টাকা। এর মধ্যে নতুন মাটি ব্যবহারের জন্য ১০ কোটি ৪০ লাখ ৬৫ হাজার ৯৩৯ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। কাজ দুটি পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কুমিল্লার রানা বিল্ডার্স। পরে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে যৌথভাবে কাজে চুক্তিবদ্ধ হয় হাসান বিল্ডার্স ও মেসার্স সালেহ আহমেদ। সড়কটি সংস্কারের ব্যয় ধরা হয় ১১০ কোটি টাকা। এ মহাসড়ক দিয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, খুলনা ও কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের যানবাহন ছাড়াও স্থানীয়ভাবে প্রতিদিন কয়েক হাজার যানবাহন চলাচল করছে। আর কাজটি দেখভালের দায়িত্ব পান লক্ষ্ধসঢ়;মীপুরের সড়ক ও জনপদ বিভাগ।

২০২০ সালের ডিসেম্বরের দিকে কাজ শেষ করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তবে কাজের শুরু থেকেই নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করার অভিযোগ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। এলাকাবাসী ও পরিবহন চালকরা জানায়, সড়কটি সংস্কারে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রাস্তার নষ্ট কার্পেটিং তুলে পরে তা না সরিয়ে বিছিয়ে রাখে। এভাবে দীর্ঘদিন ফেলে রাখার পর দায়সারাভাবে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কার্পেটিং করে। যার কারণে সড়কটি বেশ কয়েকটি স্থান ফেটে গিয়ে কার্পেটিং উঠে যাচ্ছে ও বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। বৃষ্টির সময় আসলে তো সড়ক বেহাল হবে। সংস্কারের ১১ মাস যেতে না যেতেই একাধিক স্থান ফেটে ও কার্পেটিং উঠে যাওয়ায় কয়েকদিন আগে রাতের আঁধারে পুনঃমেরামত করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। তবুও শেষ রক্ষা হয়নি। মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারী) সরেজমিনে দেখা যায়, সড়কের বিভিন্ন স্থান (সরকারি হাসপাতালের সামনে, বাসাবাড়ী বাজার, রাখালিয়া, চালতাতুলি, বোর্ডারবাজার ও মাইলের মাথা) ফেটে গেছে ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকটি স্থানে পুনঃসংস্কার করা হলেও তা পূর্বের চেয়ে নাজুক। কোথাও কোথাও কার্পেটিং উঠে গেছে ও যাচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, প্রকৌশল বিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজসে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নামমাত্র নিম্নমানের বিটুমিনের প্রলেপ দিয়ে কার্পেটিং করায় তা টেকসই হচ্ছে না। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি আজিজুল করিম বাচ্চু বলেন, ভারী যানবাহন চলাচল করার কারণে এমনটা হয়েছে। সহসাই ঠিক করে দেয়া হবে বলে জানান। এ বিষয়ে লক্ষ্মীপুরের-সওজ’র নির্বাহী প্রকৌশলী সুব্রত দত্তের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে, কোথাও ত্রুটি থাকলে সংশোধন করা হবে জানান তিনি।