বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গাজীপুর শ্রীপুরে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ অপহরণ ও গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সোহাগ মিয়াকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে গাজীপুর সদর উপজেলার মনিপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার সোহাগ মিয়া ময়মনসিংহের ভালুকা থানার ভরাডোবা এলাকার আলাল মিয়ার ছেলে।

র‌্যাব-১ এর গাজীপুরের পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গত বছরের ৫ সেপ্টেম্বর রাতে ভালুকা থানার ভরাডোবা এলাকা হতে গৃহবধূ ভিকটিমকে (২৩) অপহরণ করে প্রাইভেটকার যোগে গাজীপুরের শ্রীপুর থানার এমসি বাজার এলাকায় নিয়ে একটি রুমে আটকে রাখে।

পরে ভিকটিমকে জীবন নাশের হুঁমকি দিয়ে কোকাকোলার সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অজ্ঞান করে ৩ বন্ধু সারা রাত পালাক্রমে গণধর্ষণ করে এবং তার ভিডিও ধারণ করে। পরদিন পুনরায় ধর্ষণের উদ্দেশে ভিকটিমকে অজ্ঞান অবস্থায় রুমে তালাবদ্ধ করে রেখে চলে যায় ধর্ষকরা।

এক পর্যায়ে ভিকটিমের জ্ঞান ফিরে আসলে সে দেখতে পায় তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে আঘাতের চিহ্নসহ রক্তপাত হচ্ছে। তখন সে দরজা খুলে বাহিরে যেতে চাইলে বাহির থেকে রুমের দরজা তালাবদ্ধ পায়। এমতাবস্থায় ভিকটিমের ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে রুমের দরজার তালা ভেঙে ভিকটিমকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে এবং তার চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠায়। পরবর্তীতে ধর্ষক সোহাগ অর্থের বিনিময়ে ওই পর্নগ্রাফি ভিডিও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়।

এ ব্যাপারে ভিকটিম বাদী হয়ে শ্রীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। র‌্যাব-১, গাজীপুর ক্যাম্পের সদস্যরা গণধর্ষণকারীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে ওই মামলা ছায়া তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে মনিপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে গণধর্ষণ এবং পর্নগ্রাফি ভিডিও ভাইরালকারী মূলহোতা সোহাগ মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে ওই ধর্ষণের ভাইরালকৃত পর্নগ্রাফি ভিডিওসহ একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

Previous articleফরিদপুরে দুই ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে
Next articleরায়পুর-লক্ষ্মীপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক: সংস্কারের ১১ মাসেই বড় বড় গর্ত!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।