আব্দুল লতিফ তালুকদার: আগামী ৩০ শে জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ভূঞাপুর পৌরসভার নির্বাচন। প্রতীক পেয়ে প্রচার- প্রচারণায় ব্যস্ত তারা। ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা। চলছে মিটিং মিছিল ও উঠান বৈঠক। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রæতি। এ পৌরসভায় মেয়র পদে লড়াইয়ে দুই প্রধান দলের দুইজন অন্যজন স্বতন্ত্র আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুদুল হক মাসুদ (নৌকা), বিএনপি মনোনীত পৌর বিএনপির সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন (ধানের শীষ) এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুস সাত্তার (জগ) প্রতীক। ভূঞাপুর পৌরসভাটি আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে বিবেচিত হওয়ায় এটি আওয়ামী লীগের ভোট ব্যাংক। বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুদুল হক মাসুদ টানা দুইবার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। এবারও তিনি নৌকার টিকিট নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। অধিকাংশ নেতাকর্মীরা তার পক্ষে কোমড় বেঁধে মাঠে নেমেছেন। তুলে ধরছেন গেল দুই মেয়াদের উন্নয়নের চিত্র। স্থানীয় সাংসদ তানভীর হাসান ছোট মনিরের উন্নয়নের ছোঁয়ায় পাল্টেও গেছে এ পৌরসভার চিত্র। তবে পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুস সাত্তার দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় কিছুটা বেকায়দায় পড়েছেন মাসুদুল হক মাসুদ। প্রকাশ্যে না হলেও আওয়ামী লীগের একটি অংশ গোপনে কাজ করে যাচ্ছেন আব্দুস সাত্তারের পক্ষে। আবার অনেককেই দেখা গেছে প্রকাশ্যে তার নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায়। পাল্টে যেতে পারে ভোটের হিসাব নিকাশ। এদিকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় এ সুযোগকে কাজে লাগাতে চাচ্ছে বিএনপির দলীয় প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন। দলীয় নেতা- কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচারণা। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রæতি। পৌরসভার নয় নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার স¤্রাট বলেন, এ ওয়ার্ডে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও রাস্তাঘাটের ব্যাপক সমস্যা রয়েছে। যিনি এ সমস্ত সমস্যার সমাধানে কাজ করবেন আমরা তাকেই ভোট দেব। পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার রতন বলেন, এ ওয়ার্ডে রাস্তাঘাটের সমস্যা রয়েছে। যিনি পৌরসভার উন্নয়নে কাজ করবেন আমরা তাকেই মেয়র হিসেবে বেছে নেব।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাসুদুল হক মাসুদ বলেন, আমার মেয়াদকালে রাস্তাঘাটসহ পৌরসভার ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। ভূঞাপুরবাসীর প্রাণের দাবি বাসস্ট্যান্ড নির্মাণ করেছি। দলীয় নেতা-কর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের ব্যাপক সারা রয়েছে। আশা করি টানা তৃতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ। আর মেয়র নির্বাচিত হলে ড্রেনেজ সমস্যা সমাধান, সাপ্লাই পানির ব্যবস্থাসহ অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করবো। নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ও পৌর বিএনপির সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, পৌর সভায় গেল দশ বছরে তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে পৌর এলাকার প্রধান সমস্যা ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ একটি আধুনিক পৌরসভা গড়ে তোলা হবে। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ভূঞাপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুস সাত্তার বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে অনেকটা শঙ্কায় রয়েছি। সাধারণ ভোটারদের ব্যাপক সাড়া রয়েছে আমার পক্ষে। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে ভূঞাপুর পৌরসভাকে একটি দুর্নীতিমুক্ত আধুনিক পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলবো। মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৯টি ওয়ার্ডে ৩০ জন কাউন্সিলর ও ১১ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। টাঙ্গাইলের সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার এইচএম কামরুল ইসলাম বলেন, এ পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার ৭শ’২৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ হাজার ৮শ’৪৫ ও মহিলা ভোটার ১০ হাজার ৮শ’৮৪ জন। ১০টি কেন্দ্রে এসব ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সকল ব্যবস্থা নেয়া হবে।