তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রামগতি পৌরসভার মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত সাত প্রার্থী এক হয়েছেন। এ নিয়ে সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে তারা নিজেদের মধ্যে সমন্বয় বৈঠক করেছে-এমন একটি ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ ছবি দেখে অনেকেই সামনের দিনে ইতিবাচক রাজনীতি হবে বলে মন্তব্য করেছেন।

পৌরসভায় দলীয়ভাবে মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এম মেজবাহ উদ্দিন। তিনি বর্তমানেও মেয়র। মেজবাহ উদ্দিনের সঙ্গে ওই সাত প্রার্থীর রাজনৈতিক বৈরিতা চলে আসছে।

এদিকে মনোনয়ন বঞ্চিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু নাসের, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সায়েদ পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক ওয়ারেছ মোল্লা, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মেহবাহ উদ্দিন হেলাল, যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ মো. রাকিব, এ এম সোয়াইব হোসেন খন্দকার ও পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আজাদ উদ্দিন চৌধুরী এক হয়ে বৈঠক করেছেন।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে আজাদ হোসেন চৌধুরীর বাসার বৈঠকে নিজেদের মধ্যে মান-অভিমান, লাঞ্ছনা-বঞ্চনার বিষয় তুলে ধরেন। মেজবাহ উদ্দিন তাদেরকে পাস কাটিয়ে চলার বিষয়ও আলোচনা হয়।

দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিগত দিনে মেয়র দলের নেতাকর্মীদের কোনো মূল্যয়ন করেনি। শুধু নিজের আখের গোছাতে ব্যস্ত ছিলেন। স্থানীয় রাজনীতিতে তাদের ত্যাগ-শ্রম আছে।

এখানে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন আট প্রার্থী। এরমধ্যে মেজবাহ উদ্দিনকে কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়। সোমবার মেজবাহ উদ্দিন সহকারী রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। সেখানে মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থীদের দেখা যায়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, মূলত মনোনয়ন বঞ্চিতরা জেলার সিনিয়র নেতাদের থেকে কার্যকরী হস্তক্ষেপ চাচ্ছেন। সামনে ইউপি নির্বাচন, পৌর, উপজেলা, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের সম্মেলন। সেখানে তাদেরকে দায়িত্বশীল পদে স্থান দিলে নিজেদের মধ্যে কেউ বঞ্চিত থাকবে না।

আওয়ামী লীগ নেতা আবু নাসের বলেন, বৈঠকে আমরা নৌকার ভোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে গত পৌরসভা নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আমাদেরকে অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। তা আজও বাস্তবায়ন হয়নি। বরং মেয়র আমাদের ওপর অত্যাচার-নীপিড়ন চালিয়েছেন। আমাদের ত্যাগ বিবেচনায়জায়গা করে দেয়ার দাবিতে এক হয়েছি।

মেয়র প্রার্থী মেজবাহ উদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন দিয়েছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সমন্বয় করে পৌরসভায় অনেকগুলো উন্নয়ন করেছি। দলের বৃহৎ স্বার্থে অল্প সময়ের মধ্যে নিজেদের মধ্যে ভুল-বোঝাবুঝির অবসান হবে।

প্রসঙ্গত, চতুর্থ ধাপে রামগতি পৌরসভা নির্বাচন ১৪ ফেব্রুয়ারি হওয়ার কথা রয়েছে। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৭ জানুয়ারি, বাছাই ১৯ জানুয়ারি ও মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৬ জানুয়ারি।

Previous articleমেঘনার চরে ২০ হাজার একর জমিতে অসময়ে কাঁচা সয়াবিন!
Next articleময়মনসিংহের ত্রিশালে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে এক নারী নিহত, গুরুতর আহত ৫
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।