জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে শ্রীরামপুর গ্রামের একটি পুকুর থেকে ১৫ দিন ধরে মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে দুই ইটভাটায়। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে ৩টি বসতবড়ি, কবরস্থান, গরুর ফার্মসহ বায়োগ্যাস প্লান্ট। কেউ বাধা দিলে প্রভাবশালীরা তাদের হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ। ফলে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না। জানা গেছে, উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের দফাদার পাড়ায় শতাধিক পরিবার বসবাস করে। ওই গ্রামের প্রভাবশালী মমতাজ আলী মিন্টু ইটের প্রধান উপকরণ মাটি বিক্রির চুক্তিপত্র করেন শ্রীরামপুর বাজারের পাশে অবস্থিত গোল্ড ব্রিকস ও গাজী ব্রিকস ইটভাটা মালিকের সাথে। ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপণ নিয়ন্ত্রণ আইন- ২০১৩ অনুযায়ী আবাসিক এলাকা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার ও ফসলি জমির এক কিলোমিটারের মধ্যে থেকে মাটি কাটা যাবে না। কিন্তু এ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মমতাজ আলী মিন্টু দফাদার পাড়ার মাস্টার সোলাইমান হোসেন ও মাস্টার আব্দুর রশিদের বাড়ির পেছনের পুকুর থেকে গত ১৫/১৬ দিন ধরে মাটি কাটা অব্যাহত রেখেছেন। ওই পুকুরের উত্তরে বায়োগ্যাস প্লান্ট, কবরখানা, পশ্চিমে সমতল ভূমি, পূর্বে গরুর ফার্ম ও দক্ষিণে ৩টি বসতবাড়ি রয়েছে। যা হুমকির মুখে পড়েছে। এছাড়া মাটি বহনের কারণে ইটে সোলিং রাস্তা দেবে নষ্ট হয়ে গেছে। ৫ দিন আগে এলাকার শিক্ষক রুহুল আমীন মাটি কাটাতে নিষেধ করায় তাকে হুমকি দেয়া হয়েছে। এলাকাবাসি পুকুর গভীর করে মাটি কাটা বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে মমতাজ আলী মিন্টু বলেন, ক্ষতির কথা বিবেচনা করে মাটি কাটা বন্ধ করা হয়েছে। কাউকে হুমকি দেয়ার ঘটনা সঠিক নয়।

Previous articleশার্শার বাগআঁচড়ায় এনজিও কর্মি পরিচয়ে শিশু চুরি
Next articleগৃহকর্ত্রীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনকারী সেই রেখা গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।