শাহিন মাহমুদ: এলাকায় জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রামু উপজেলার রশিদ নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও টানা তিন বারের জনগনের ভোটে নির্বাচিত সাবেক মেম্বার শাহ আলমের বিরুদ্ধে নানাবিধ ষড়যন্ত্র শুরু করেছে স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। স্বজন ও এলাকাবাসী এমনটাই জানিয়েছেন।

এমনকি ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণি করায় বর্তমানে ফেরারি আসামীর মতো দিন যাপন করছেন তিনি। এভাগে গা ঢাকা দেওয়ায় সংশ্লিষ্ট পরিষদের কার্যক্রমেও নেমে এসেছে স্থবিরতা। যার ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ ও সেবা প্রার্থী লোকজন। অথচ এখন প্রতিটি পরিষদে জন্মসনদ সরবরাহের মতো অতি জনগুরুত্বপূর্ণ কাজ চলছে।

বছরের শুরুর দিকে হওয়ায় শিশুদের স্কুল ভর্তি কার্যক্রমে এই সনদ ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা থাকায় প্রায় সব অভিভাবক এখন পরিষদে ভিড় করছে। কিন্তু চেয়ারম্যান না থাকায় এধরণের সেবা প্রার্থীরা নানা ধরণের ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন এবং সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি গত শনিবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে রামুর রশিদনগর ইউনিয়নের পানিরছড়া মামুন মিয়ার বাজারে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের ৩ কর্মী মারাত্মকভাবে আহত হয়। বর্তমানে তারা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

এই ঘটনায় স্থানীয় চেয়ারম্যান এমডি শাহ আলমকে প্রধান এবং তার পরিবারের ১৮ জনকে আসামী করা হয়। এরপর থেকে তিনি গা ঢাকা দিয়েছেন। তার পরিবারের দাবী- তাকে মামলার প্রধান আসামী করে ক্ষান্ত হয়নি। স্ত্রী সন্তানকেও নিয়মিত বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছেন সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকে বিভিন্ন ফেইক (ভূঁয়া) আইডি দিয়ে হত্যার হুমকি এবং অশালিন মন্তব্য করে যাচ্ছেন। যা তার স্ত্রীর কাছে সংরক্ষিত আছে বলে জানিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দলীয় কোন্দলের জের ধরেই সংঘর্ষ। অথচ ওই ঘটনার সাথে বিন্দুমাত্র জড়িত না থেকে মামলার প্রধান আসামী করা হয় তাকে। গেলো ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন এমডি শাহ আলম। এলাকাবাসী ও সহকর্মীরা বলছেন, জনপ্রিয়তাই কাল হয়েছে তার। পরিবারেরও ধারণা, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে সংঘর্ষ ও মামলার আসামী করা হয়েছে তাকে। তারা জানালেন, আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে এবং বিগত নির্বাচনে তার কাছে পরাজিতদের দ্বন্দের কথা।

এটি প্রথম নয়, এর আগেও কয়েক দফা চেয়ারম্যান শাহ আলমের বিরুদ্ধে ফেইসবুকে তার ভয়েস রেকর্ড এডিট করে নানানভাবে ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল বলে জানায় স্বজনরা।

পরিষদের ইউপি সদস্যরা জানান, শাহ আলম ধনী গরীব নির্বিশেষে সবার জনপ্রিয় চেয়ারম্যান। তিনি তার কর্মকান্ড-সততা ও নিষ্ঠার পরিচয় দিয়েছিলেন। এলাকায় তার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে পরিকল্পিতভাবে তাকে মামলার আসামী করা হয়। যা অতন্ত দুঃখজনক।

চেয়ারম্যান শাহ আলম মুঠোফোনে প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, তার বলিষ্ঠ ও অবাধ পথচলা রুদ্ধ করতে ফাঁদে ফেলতে হেন উপায়, কূটকৌশল ও অপপ্রচার নেই, যা এর আগে প্রয়োগ করেনি। তিনি কোনো অন্যায় করেননি। আশ্রয় নেননি কোনো দুর্নীতির। অন্যায়ের কাছে শির নত না করার কথা এবং যেকোনো প্রতিকূল ও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত থাকার কথাও তিনি জানান।

Previous articleপ্রথম ধাপে রংপুরের আট জেলায় ১৬ লাখ ৪৪ হাজার ৫৯ জনকে টিকা প্রদান করা হবে
Next articleপাবনায় ২ মেয়রপ্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ১০
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।