তাবারক হোসেন আজাদ: শুধু সরকারের উপর নির্ভরশীল নয় দশে মিলে কাজ করলে যে সফলতা আসে তার প্রমাণ রাখলেন লক্ষ্মীপুুুুরের রায়পুুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে কয়েকজন সমাজসেবক। ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি বিশাল বাশেঁর সাকো তৈরি করে এতদিন ধরে বিচ্ছিন্ন থাকার বিশৃঙ্খল জীবন থেকে মুক্ত হয়েছেন।

শুক্রবার বিকেলে (২৯ জানুয়ারী) এই বাঁশের সাকোটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও ইউপি চেয়ারম্যান সুমন চৌধুরিসহ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। উদ্বোধন করতে আসা অতিথিরাও এজন্য নিজেদের লজ্জার কথা জানালেও কয়েকজন সমাজ সেবকের এই উদ্যোগে তারাও গর্বিত। আগামীতে স্থায়ী ব্রিজ নির্মাণেরও প্রতিশ্রুতি দিলেন তারা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রায়পুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সফিউল আজম চৌধুরি সুমনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, রায়পুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট মারুফ বিন জাকারিয়া, বিশিষ্ট সমাজ সেবক গাজি মাহমুদ কামাল, এডভোকেট রাজু ও সমাজ সেবক কামরুল আল মামুন প্রমুখ।

রায়পুর উপজেলা সদর থেকে ৫ কিলোমিটার পশ্চিম দিয়ে মরা ডাকাতিয়া নদী। এই নদীর এ পাড়ে দেবিপুর, শায়েস্তানগর, চরমোহনা, উত্তর রায়পুর,চালতাতুলি, চরমোহড়া, মিতালিবাজারসহ ১০ টি গ্রাম। মাত্র ৫ কিলোমিটার দূরে উপজেলা সদর অবস্থিত হলেও ডাকাতিয়া নদীর কারণে তারা ছিলেন বিচ্ছিন্ন। এই ১০ গ্রামের কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য অনেক কষ্ট করে নদী পাড় করে উপজেলা নিয়ে যেতেন। একই সঙ্গে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীদেরও ছিল খুব কষ্ট। সেই সঙ্গে গ্রামের মানুষ কোনো গুরুতর রোগে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত হাসপাতালে পৌঁছানো যেত না। হাতের কাছে সব কিছু থাকতেও তারা সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিলেন।

এদিকে, এই ব্রিজটি না থাকায় চরমোহনা ও চরআবাবিল ইউপি ঘুরে অনেক ঘুরপথে যেতে হয়। ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে অল্প সময়ে রায়পুর ইউপি থেকে সদরে যাতায়াত করা সম্ভব হবে। তাদের এই কষ্ট লাঘবের জন্য বার বার সরকারের নানা জায়গায় ধরনা দিয়েও মেলেনি তাদের কাঙ্খিত ব্রিজ। তাই ছয় গ্রামের মানুষ মিলিত হয়ে ঠিক করেন তারা নিজ উদ্যোগেই তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন করবেন।

এই গ্রামগুলোর মানুষ মিলিত হয়ে তাদের নেতা ঠিক করেন। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মারুফ বিন জাকারিয়া নীজ দ্বায়িত্ব কয়েক সমাজ সেবকের সহযোগিতায় করে দিলেন একটি বাঁশের সাকো তৈরির কাজ। দীর্ঘ দুই মাস কাজ করে তারা ডাকাতিয়া নদীর উপর ৬শ` ফিট দীর্ঘ সেতু নির্মাণ কাজ শেষ করেন। শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই বাঁশের সাকো সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া শায়েস্তানগর গ্রামের কৃষক আব্দুল মজিদ জানান, এতদিন ধরে অনেক কষ্ট করে উৎপাদিত পন্য বেলকুচি নিতে হতো। এই বাঁশের ব্রিজটি হওয়ায় এখন অনেক সহজেই পণ্যগুলো নেয়া সম্ভব হবে। তবে এটি কোনো স্থায়ী সমাধান নয়। আগামীতে হয়তো বাঁশের সাকোটি ভেঙে পড়বে। তার আগেই যেন সরকার তাদের স্বপ্নের সেতুটি তৈরি করে দেয়।

চরমোহনা গ্রামের নজরুল ইসলাম জানান, ডাকাতিয়া নদির উপর বাঁশের সাকোটি নির্মাণ করায় এখন ১০ গ্রামে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। খুব সহজে তারা এক স্থান থেকে অন্যস্থানে যাতায়াত করতে পারবে। কিন্তু এতদিন ধরেও সরকার তাদের এই দাবিটি পুরণ না করলেও গ্রামবাসী মিলিত হয়ে অস্থায়ীভাবে সমস্যার সমাধান করেছে। তিনি সরকারের কাছে স্থায়ী সমাধানের দাবি জানান।

চালতাতুলি গ্রামের আজগর আলী জানান, এই ব্রিজটি নির্মাণ করার ফলে এখন খুব সহজেই কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হবে। কিন্তু আগে কোনো রোগী অসুস্থ হলে তাকে খেয়া ঘাট পার হতে না হতেই মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়তে হতো। বাঁশের সাকো নির্মাণ করা হলেও এটি দীর্ঘস্থায়ী নয়। যে কারণে এখানে একটি স্থায়ী ব্রিজের প্রয়োজন।

উদ্যোক্তা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট মারুফ বিন জাকারিয়া জানান, দির্ঘদিন ধরে-গ্রামবাসীরা ডাকাতিয়া নদির উপর সাঁকোটি নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। তিন মাস পর নীজেসহ কয়েকজন সমাজসেবকের সহযোগিতায় সাঁকোটি করে দিতে পারায় গ্রামবাসীর সাথে আমরাও আনন্দিত। একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যেই সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। প্রস্তাবনাটি খুব শীঘ্রই পাশ হয়ে আসলে আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে এই ব্রিজটি নির্মাণ করা সম্ভব হবে।