বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম ও রংপুরসহ দ্বিতীয় ধাপে দেশের ২৫ জেলায় পৌঁছে গেছে করোনার টিকা। এ দফায় দেওয়া হচ্ছে প্রায় ২৪ লাখ ডোজ। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি জেলায় স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণও শুরু হয়েছে।

রোববার (৩১ জানুয়ারি) সকাল ৭টার কিছু আগে চট্টগ্রামে পৌঁছে বহুল প্রতীক্ষিত করোনা ভ্যাকসিন। কাকডাকা ভোরে কড়া পুলিশ পাহারায় সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকোর রেফ্রিজারেটর ভ্যানে ৩৮টি কার্টনে ৪ লাখ ৫৬ হাজার টিকা এসে পৌঁছায়। পরে টিকাগুলো রাখা হয় ইপিআই কোল্ড স্টোর রুমে।

নগরীর ১৫টি হাসপাতালের ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে। চিকিৎসক ও পুলিশসহ যারা করোনা প্রতিরোধে সামনের সারিতে আছেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রথমে তাদের দেওয়া হবে।

চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক হাসান শাহারিয়ার বলেন, চট্টগ্রাম মেডিকেলের চারটি আউটলেট থেকে আমরা প্রথম দিন শুরু করব এবং সেক্ষেত্রে আমাদের ফ্রন্টলাইনার যারা আছেন তাদের একটি লিস্ট আছে সেখান থেকে আমরা যিনি প্রথমে আসতে চান তাকে দিয়ে টিকা কার্যক্রম শুরু করব।

অন্যদিকে, ভোর ৫টার কিছু পরে রংপুরে পৌঁছে ২ লাখ ৪০ হাজার ডোজ করোনা ভ্যাকসিন। সিভিল সার্জনসহ জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা ১৭টি কার্টনে আনা টিকা গ্রহণ করেন। রংপুরে প্রথম দফায় আসা ভ্যাকসিনের চালানটি বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কার্যালয়ের ইপিআই স্টোরে রাখা হয়েছে। এর আগে স্টোররুম টিকা রাখার উপযোগী করা হয়। এরই মধ্যে টিকা প্রদানে স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন।

পর্যায়ক্রমে সিলেট, সুনামগঞ্জ, ঠাকুরগাঁওসহ দেশের অন্যান্য জেলায় পৌঁছেছে দ্বিতীয় দফার এই করোনা ভ্যাকসিন।