তাবারক হোসেন আজাদ: প্রার্থীতা চুড়ান্ত হওয়ার পরই লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচনি প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। দলীয় মনোনয়ন নিয়েই মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন, বিএনপির প্রার্থী দুইবারের সাবেক মেয়র এবিএম জিলানী। প্রতিক পাওয়ার আগে ওয়ার্ডগুলো চষে বেড়াচ্ছেন জামায়াত সমর্থীত প্রার্থী অধ্যাপক (অবঃ) মনির আহাম্মদ। মতবিনিময় ও কুশল বিনিময়ে এই প্রচারণায় মেতেছেন তারা।

রায়পুর উপজেলা নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, গত ২ ফেব্রুয়ারী রুবেল ভাট ও জিলানীসহ ৭ জন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্র জমা দেন। যাচাই বাছাইয়ে দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৬ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। ৪ ফেব্রুয়ারী এসব প্রার্থীর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়। ১২ ফেব্রুয়ারী প্রার্থীতা প্রত্যাহার ও ১৪ ফেব্রুয়ারী প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। ২৮ ফেব্রুয়ারী পৌরসভায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

ভোটাররা বলছেন, মেয়র পদে ৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল লড়াই হবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত রুবেল ভাট, বিএনপির জিলানী ও জামায়াত সমর্থীত স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যাপক (অবঃ) মনির আহাম্মদের মধ্যে। ভোটাররা এই তিন প্রার্থী থেকেই তাদের নগর পিতা বাছাই করবেন। এ কারণে এ তিন প্রার্থী আগাম প্রচারণায় পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় সাধারণ ভোটারদের মাঝে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।

পোস্টার লাগাচ্ছে নেতাকর্মীরা
সূত্র জানায়, নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণের পরই গিয়ারস উদ্দিন রুবেল ভাটের পক্ষে মাঠে নামে নেতাকর্মীরা। স্বেচ্ছাসেবকলীগ, স্তগিত থাকা যুবলীগের দুই গ্রুপ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা গত জানুয়ারী মাস থেকে শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে লিফলেট বিতরণ ও পোস্টার লাগিয়ে প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন।
রুবেল ভাটের ভাই শিবলু ভাট, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও আ’লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কয়েকজন নেতা শহরে ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় ও লিফলেট বিতরণ করেন। নেতারা পৃথক শহরে প্রচারণা চালান এবং সেই প্রচারণার ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন। এভাবে নিয়মিত নির্বাচনি প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। তবে ওই সময় মাঠে নিষ্ক্রিয় ছিল বিএনপির নেতাকর্মীরা। মনোনয়ন জমার পর জোরেশোরে প্রচারণায় নামে তিন দলের নেতাকর্মীরা। নিয়মিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা, মতবিনিময় ও মাঠে সাধারণ ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা।

সর্বশেষ ৬ ফেব্রুয়ারী (শুক্রবার) সন্ধায় এবং শনিবার (৭ ফেব্রুয়ারী) ওয়ামী লীগ সমর্থিত রুবেল ভাট শহরের একটি চাইনিজ রেষ্ট্রুরেন্টে ও প্রেসক্লাবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। এসব সভায় তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালান।

এদিকে উপজেলা বিএনপির সূত্র জানায়, শনিবার (০৭ ফেব্রুয়ারী) পৌর বিএনপির সভাপতি ও দলের প্রার্থী এবিএম জিলানী তার বাসায় সকল সাংবাদিকদের এ সঙ্গে মতবিনিময় করেন। তিনি অভিযোগ করেন, তাদের দলের কর্মীদের প্রচারনা করতে দিচ্ছে না। নানানভাবে হুমকি দিচ্ছেন। পানির বিল ও কর কমানোসহ নানান প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অধ্যাপক (অবঃ) মোঃ মনির আহাম্মদের পক্ষে পৌরসভার জামায়াত ও শিবিরের কর্মীরা প্রতিদিন ফজরের নামাজের পর মুসুল্লিদের সাথে মতবিনিময় করছেন। সাথে স্থানীয় চা দোকানে উপস্থিত গ্রামবাসীর কাছে দোয়াও চাচ্ছেন।

নির্বাচনে লিফলেট বিতরণ করছে নেতাকর্মীরা
উজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিপক বিশ্বাস বলেন, ‘মনোনয়ন যাচাই-বাছাইয়ের আগে আসলে কেউই প্রার্থী নন। কারণ, যাচাই-বাছাইয়ের পর কারও প্রার্থিতা বাতিল হয়ে গেলে, সে আর প্রার্থী থাকছে না। সুতরাং কে কী করছে, সে বিষয়ে আমরা মাথা ঘামাচ্ছি না। প্রার্থী চুড়ান্ত হওয়ার পর আমরা দেখবো।’

উল্লেখ্য, আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি রায়পুর পৌরসভার ৯ ওয়ার্ডে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মোট ভোটার ২৩.৬৩১ জন। নারী ১১ হাজার ৬৪১ ও পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ৯৯০ জন।

Previous articleরংপুরে পিকনিকের নামে নাশকতার গোপন বৈঠক: ৩২ জামাত নেতা কারাগারে
Next article১৯ ক্যাটাগরির মানুষ টিকার নিবন্ধন করতে পারবে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।