বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীতে কনকনে শীতে বেড়েছে শীতজনিত রোগের প্রকোপ। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা ও ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে শিশুসহ সহস্রাধিক রোগী। এদিকে গত দুমাস নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১৫ শিশু।

তবে হাসপাতালে শিশু ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্তদের শয্যা কম হওয়ায় চিকিৎসা সেবা নিতে এসে বিপাকে পড়ছেন রোগীর স্বজনরা। অতিরিক্ত রোগী ও পর্যাপ্ত ওষুধের সরবরাহ না থাকার কারণে ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা কার্যক্রম।

জানা গেছে, নোয়াখালীর উপকূলীয় অঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় শীতের শুরুতে দেখা দিয়েছে ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগ। মাঘের প্রথম থেকে বেড়ে যায় শীতের তীব্রতা। আর এতে বেড়েছে শীতজনিত রোগে অসুস্থের সংখ্যা। সর্দি, কাশি, কোল্ড ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, অ্যাজমা, ব্রংকাইটিস, সিওপিডি, শ্বাসকষ্ট, শিশু ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন হাসপাতালে ভর্তি বাড়ছে রোগীর।

মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, হাসপাতালটির ৪ ও ১৩ নং শিশু ওয়ার্ডে সরকারিভাবে ৩০ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থেকে আরো ৪৪টি বেডের ব্যবস্থা থাকলেও রোগী রয়েছে তার চেয়ে দ্বিগুণ। বেড না পেয়ে ওই কক্ষের মেঝে ও বাহিরের করিডোরে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে অসুস্থ শিশুরা। ভর্তি থাকা বেশিরভাগ শিশুর বয়স শূন্য থেকে তিন বছরের মধ্যে। আবার অধিকাংশ রোগী গত ৬-৭ দিন ধরে ভর্তি আছেন। হাসপাতাল থেকে পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ করতে না পারায় বাহির থেকে ওষুধ আনতে হচ্ছে রোগীর স্বজনদের। আর তাতেই বিপদে পড়েছেন দরিদ্র রোগীরা।

অভিযোগ রয়েছে, নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা নিয়মিত শিশু ও ডায়রিয়া ওয়ার্ডে রোগী দেখেন না। নোয়াখালী আবদুল মালেক উকিল সরকারি মেডিকেল কলেজ ও চিকিৎসক সহকারী প্রশিক্ষণ বিদ্যালয়ের (ম্যাট্স) ইন্টার্নি চিকিৎসক ও সেবিকাদের উপর নির্ভর করে চলছে চিকিৎসা সেবা।

ভর্তিকৃত একাধিক শিশুর পরিবারের লোকজন অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালে তারা শুধু নামমাত্র ভর্তি হয়েছে। সকল ওষুধ বাহির থেকে ক্রয় করে আনতে হচ্ছে। পর্যাপ্ত পরিমাণ খাওয়ার স্যালাইনও তাদেরকে হাসপাতাল থেকে দেওয়া হচ্ছে না। এছাড়া বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা নিয়মিত ওয়ার্ডে রোগীদের দেখতেও আসেন না।

হাসপাতালে ভর্তিকৃত এক শিশুর অভিভাবক বলেন, গত তিন দিন আগে ডায়রিয়া আক্রান্ত এক বছরের শিশু কন্যাকে ভর্তি করান। কোন ওষুধ হাসপাতাল থেকে দিচ্ছে না। ইতোমধ্যে অনেক টাকার ওষুধ বাইরে থেকে কিনে এনেছেন। এছাড়াও বেড না পেয়ে মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি।

সেবিকা ইনচার্জ আনোয়ারা বেগম জানান, শীতজনিত কারণে ডায়রিয়া ও শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন ৩৫ থেকে ৪০জন শিশু ভর্তি হচ্ছে। বর্তমানে হাসপাতালে ওষুধের মধ্যে মেট্রো, সিপ্রো ও কলেরার স্যালাইন সংকট রয়েছে।

শিশু ওয়ার্ডের ইনচার্জ কামাল উদ্দিন বলেন, ঠান্ডাজনিত কারণে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে চলতি মাসে (ফেব্রুয়ারি) ৩তারিখে দুদিন বয়সী একজন, ৭ তারিখে ২৭ ও ১ দিন বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। জানুয়ারি মাসে ৮ এবং ডিসেম্বরে মারা গিয়েছিল ৪ শিশু। এদের সবার বয়স ছিল জিরো থেকে দুবছরের মধ্যে। ফেব্রুয়ারি মাসে শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১২৮ জন শিশু। রোগীর চাপ বেশি থাকায় চিকিৎসা দিতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে কর্তব্যরতদের।

হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. ইয়াকুব আলী মুন্সী বলেন, শীতকালে শিশুরা নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া বেশি আক্রান্ত হয়। পানিবাহিত হওয়ায় এ রোগ দ্রুত ছড়ায়। তাই শীতের সময় অভিভাবকদের বেশি সতর্ক থাকা জরুরি। ঠান্ডা থেকে রক্ষায় যেমন সতর্ক থাকতে হবে তেমনি ঘরে পর্যাপ্ত পরিমাণ আলো-বাতাসের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ডা. সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম জানান, বর্তমানে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। দুটি ওয়ার্ডে ৩০টি শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তি হচ্ছে কয়েকগুণ।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নুরুল আমিন বলেন, দুদিন ডায়রিয়া স্যালাইন ছিল না। তবে শিশুদের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে কলেরা স্যালাইন, সিপ্রো ও মেট্রোসহ বেশি প্রয়োজনীয় আরও কিছু ওষুধ সংকটের বিষয়ে তিনি বলতে পারবেন না বলে জানান। তবে কোন ওষুধের সংকট থাকলে দ্রুত তার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান।

Previous articleবিএনপির আন্দোলন কোন বছর, জানতে চান কাদের
Next articleজান্তা বিরোধী বিক্ষোভে রণক্ষেত্র মিয়ানমার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।