আব্দুল লতিফ তালুকদার: শীত ঘনিয়ে আসলেই দেশে শুরু হয়ে যায় পিঠা পার্বনের উৎসব। নবান্নে গ্রামগুলোতে বিভিন্ন রকমারি পিঠা-পুলি যেন আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে এক উৎসবে পরিনত হয়। নতুন ধানের পিঠা পুলির এই উৎসব গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য যেন দিনদিন হারিয়ে যাচ্ছে। পিঠা তৈরির বিভিন্ন উপাদানের মধ্যে নারিকেলেকে কিন্তু খাটো করে দেখার কোন সুযোগ নেই। পিঠায় স্বাদে ভিন্ন মাত্রা এনে দিতে পারে নারিকেলের দুধ ও কুড়া। আর এই পিঠার উৎসবে ভেদাভেদ নেই ধনী দরিদ্রের। কিন্তু পিঠা তৈরির এই উপাদানটি যেন হাতের নাগালেই বাইরে চলে যাচ্ছে। শীতের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে নারিকেলের দাম। আকার বেধে বাজারে প্রতি জোড়া নারিকেল বিক্রি হচ্ছে ৩’শ থেকে ৩’শ ৫০ টাকা। যা গরীব মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। সরেজমিনে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী বাজারে দেখা গেছে এমন চিত্র। বাজারে নারিকেল কিনতে আসা হতাশার কথা জানান রুহুলী গ্রামের মায়া বেগম। একজোড়া নাতিকেলের দাম যদি ৩’শ টাকা হয় তাহলে আমাদের মতো গরীব মানুষেরা কিভাবে পিঠা তৈরি করে খাবে। এদিকে আবার গুরের দামও বেশি। অনেক আশা নিয়ে শুশুয়া চরের আশরাফ আলী বাজারে এসেছিলেন একজোড়া নারিকেল কেনার জন্য, দাম শুনে ক্রয় না করেই বাড়ি ফিরে যান। এদিকে নাকিকেল বিক্রতা অসীম চন্দ্র সাহা জানান, আমারা দাম বেশি দিয়ে ক্রয় করেছি, তাই বেশি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে। তাছাড়া এখন গাছের মালিকেরা ডাব বিক্রি করার কারনেই বাজারে নারিকেলের সংকট দেখা দিয়েছে।

Previous articleশার্শার বাগআঁচড়ায় দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৫ জন আহত
Next articleরায়পুর পৌরসভা নির্বাচন: প্রচারণা শুরু, মাইকের শব্দে কান ঝালাপালা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।