তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভায় শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারী) প্রতীক বরাদ্দের পরই জোর প্রচারণায় নেমেছেন ৫ মেয়র ও ৫৫ জন কাউন্সিলর প্রার্থী। প্রথম দিনেই মাইকের শব্দে কান ঝালাপালা হয়ে যায় পৌরবাসীর। দুপুর ১২টার মধ্যে নওগাঁ পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া শেষ হয়। বেলা দুইটার পর থেকেই মাইকে প্রার্থীদের নাম ও প্রতীক উল্লেখ করে প্রচারণা শুরু হয়ে যায়।

প্রতীক নিয়ে প্রচারণার সুযোগ পেয়ে পৌরসভার অলিগলিতে দলীয় মেয়র প্রার্থীরা পোস্টার টানানো শুরু করেছেন। তবে আগে থেকে প্রতীক নিশ্চিত না থাকায় কাউন্সিলর প্রার্থীরা পোস্টার ছাপাতে না পারায় তাঁদের প্রতীকসংবলিত পোস্টার শনিবার দুপুর তিনটা পর্যন্ত চোখে পড়েনি।

শনিবার দুপুরে পৌরসভার বেশ কিছু এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বেলা দুইটার পর থেকে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণায় সরগরম পুরো পৌরসভা। অটোরিকশা, ইজিবাইক ও রিকশায় মাইক বেঁধে চলে বিরামহীন প্রচারণা।

পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকসহ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পক্ষে পোস্টার লাগাতে দেখা গেছে।
রায়পুর পৌরসভার তুলাতুলি এলাকার মোবাইল ব্যবসায়ী রুবেল ও জাহেদ হোসেন বলেন, ‘প্রার্থীরা প্রতীক পাওয়ার পর থেকে আমাদের যন্ত্রণার শুরু হলো। বেলা দুইটা থেকে তিনটা পর্যন্ত দুইজন মেয়র ও চারজন কাউন্সিলর প্রার্থী ভোট ও দোয়া চেয়ে গেলেন। নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত গ্রাহকদের চেয়ে প্রার্থীদের সময় দিতে হবে বেশি। তার ওপর মাইকে প্রার্থীদের প্রচারণা। এটা আরেক যন্ত্রণা। শব্দে কান ঝালাপালা হয়ে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন যদি মাইকে প্রচারণা বন্ধ করত, তা হলে খুবই ভালো হতো।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিপঙ্কর বিশ্বাস বলেন, আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারী তারিখের নির্বাচনে ‘মাইকে প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন। তবে বেলা দুইটা থেকে রাত আটটার মধ্যে মাইকে প্রচারণা চালানো যাবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে মাইক বাজানো যাবে না।’

রায়পুর পৌরসভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ হায়দার ও মাসুদ উদ্দিনের মনোনয়ন বাতিল হলে ৫ জন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট, বিএনপির এবিএম জিলানী, ইসলামী আন্দোলনের মাওঃ আবদুল খালেক, স্বতন্ত্র প্রার্থী মনির আহাম্সদ ও নাসির উদ্দিন সগির। বাতিল হওয়া স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাসুদ উদ্দিনের দায়ের করা হাইকোর্টের মামলার কাগজ হাতে না পাওয়া পর্যন্ত তাকে প্রতিক বরাদ্ধ দেয়া হয়নি।

পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৬ জনের মধ্যে ৫ জন প্রত্যাহার করেন ও ৩ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়। মোট প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪৮ জন প্রার্থী। তিনটি সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৭ জনই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।