জি.এম.মিন্টু: আবহাওয়া ও দোঁয়াশ মাটি খেজুর চাষে উপযোগী হওয়ায় যশোরের কেশবপুরে সৌরি আরবের মরুভূমির খেজুর চাষে আশার আলো দেখা দিয়েছে। উপজেলার সাতবাড়িয়া গ্রামের খেজুর চাষী সাইফুল ইসলাম ৮/৯ মাস আগে বাণজ্যিকিভাবে ৫ বঘিা জমেিত সৌদি আরবের মরুভূমির খেজুর আবাদ করেন। তার এ আধুনকি প্রযুক্তির আবাদ উপজেলা ব্যাপী ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। সাইফুলের পাশিপাশি আটন্ডা গ্রামের শিক্ষক সলেমান সরদারের ছেলে মহিবিল্লাহ বাচ্ছু এবং আলতাপোল গ্রামের জি.এম.মনিরুজ্জামানসহ অনেকে খেজুর চাষ শুরু করেছেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মহাদেব চন্দ্র সানা সাইফুলের খেজুর বাগান সরেজমিনে তাঁর পরিদর্শকরে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। ত্রিমোহনী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত আতিয়ার রহমানের ছেলে সাইফুল ইসলাম তার নিজস্ব পরিকল্পনায় সৌদি খেজুরের আবাদ শুরু করেন। পরবর্তীতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে ফসলের নিয়মিত পরিচর্যা করায় তিনি বাম্পার ফলনের আশা করছেন। সাইফুল ইসলাম বলেন, ইউটিউবে খেজুর আবাদ দেখে তার বিলাশী খেজুর চাষ শুরু। তাঁর ক্ষেতে বারী. খলিজি ও খালাদ জাতের খেজুর গাছ রয়েছে। যা কাঁচা খাওয়া যায় এবং কাঁচায় খুব মিষ্টি। ক্ষেতে সার হিসাবে কম্পোস্ট, ফসফেট, পটাশ, বোরন, জিংক ও ইউরিয়া ব্যবহার করছেন। তাঁর ক্ষেতের ফসলের পরিচর্যায় সার্বক্ষনিক ২০ জন শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন। অল্প দিনের মধ্যে তাঁর খেজুর গাছে ধরণ আসবে বলেও তিনি আশা করছেন। উপজেলার আটন্ডা গ্রামের মহিবিল্লাহ বাচ্ছু বলেন, সরাসরি বীজ থেকে উৎপাদিত চারা রয়েছে তার কাছে। টিস্যু ও কলম চারা থেকে দুই থেকে তিন বছরে ফলন পাওয়া যায়। একটি টিস্যু চারা আট থেকে ১০ হাজার, কলম চারা ৫০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা এবং বীজের চারা ৮০০ থেকে হাজার টাকায় বিক্রি হয়। একটি পূর্ণাঙ্গ গাছে ২৫০ থেকে ৩০০ কেজি খেজুর হয়। তাছাড়া বীজ থেকে উৎপাদিত চারায় ফলন আসতে সময় লাগে তিন থেকে চার বছর। বীজ থেকে উৎপাদিত চারা তুলনামূলক স্বল্পমূল্যে বিক্রি করা সম্ভব। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশে বছরে প্রায় ৩০ হাজার মেট্রিক টন খেজুরের চাহিদা রয়েছে। যার পুরোটাই আমদানি করতে হয়। খেজুর চাষে আগ্রহী অনেকেই বেকার যুবক মহিবিল্লাহ বাচ্ছু বলেন, ‘আমার এ সাফল্য দেখে স্থানীয় বেকার যুবকদের অনেকেই খেজুর চাষে আগ্রহী হয়ে উঠবে বলে আশি রাখি।’ আলতাপোল গ্রামের জি.এম.মনিরুজ্জামান বলেন, ‘প্রাথমিক ভাবে অল্প পরিমান খেজুরের বীজ সংগ্রহ করে তা প্লাষ্টিকের টবে আবাদ শুরু করেছি। আমার খেজুরের চারা অনেক ছোট। এবছর নতুন করে আরো কেশকিছু আজুয়া ও মরিয়াম খেজুরের বীজ রোপন করেছি। তিনি আরো বলেন, কৃষক পর্যায়ে খেজুর চাষের বার্তা পৌঁছে দিলে এটি পুরো দেশেই ছড়িয়ে পড়বে। লাভজনক এ চাষে কৃষকরা

আগ্রহী হয়ে উঠবেন।’ আরবি খেজুর পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীনতম ফল। প্রধানত পূর্ব ও উত্তর আফ্রিকা দেশগুলোতে এ ফলের চাষ প্রচলন বেশি। অনেকের মতে ইরাক অথবা মিসর খেজুর ফলের আদি স্থান। প্রাচীনকাল থেকে খেজুর ফলের বাগান সৃষ্টি করা এবং তা থেকে প্রাপ্ত খাদ্য ও ফলের উৎস হিসেবে খেজুর মানুষের জীবন ধারণের অন্যতম অবলম্বন ছিল। আরব দেশগুলোর মরুভূমি এলাকায় যেখানে অন্য কোনো গাছপালা জন্মানো সহজ হয় না সেখানে খেজুর বাগান সৃষ্টি করে মরুদ্যান সৃষ্টি করা হতো। আরবি খেজুর যেসব দেশে বেশি চাষ হয় তার মধ্যে মিসর, সৌদি আরব, ইরান, ইরাক, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত, পাকিস্তান, আলজেরিয়া, সুদান, ওমান, লিবিয়া ও তিউনেশিয়া অন্যতম। অধুনা চীন, ভারত ও আমেরিকার কিছু অংশে সফলভাবে খেজুর চাষ করা হচ্ছে। রমজান মাসে সৌদি খেজুর দিয়ে ইফতারি করার প্রচলন মুসলিম দেশগুলোতে আছে। বাংলাদেশসহ সব মুসলিম দেশ প্রচুর খেজুর আমদানি করে অথবা নিজেদের উৎপাদন থেকে রমজান মাসে প্রচুর খেজুরের চাহিদা পূরণ করে থাকে। বাংলাদেশের বৃহত্তর, যশোর, ফরিদপুর খুলনা, বরিশালসহ সারা দেশে কম-বেশি খেজুর চাষ করা হয় মূলত রস ও গুড় তৈরির কাজে। দেশি জাতের খেজুর গাছে যে পরিমাণ ফল ধরে তা উন্নত মানের নয়, তাই ফল হিসেবে খাওয়ার তেমন প্রচলন নেই। গত ১৫-২০ বছর ধরে দেশের বিভিন্ন এলাকার কিছু আগ্রহী চাষি সীমিত আকারে খেজুর চাষ করে সফল হয়েছে। আধুনিক সঠিক প্রযুক্তি ব্যবহার ও পরাগায়নে সক্ষমতার অভাবে খেজুর গাছ থেকে তারা কম ফলন পায়। বীজ থেকে তৈরি বাগান করায় তাতে জাতের গুণাগুণ রক্ষা হয় না। এছড়া সরকার যশোর জেলায় অনেক খেজুরের চারা রোপন করেছেন। পর্যাপ্ত রোদ, কম আর্দ্রতা, শুকনা ও কম বৃষ্টিপাত, উষ্ণ আবহাওয়া এ ফল চাষের জন্য উপযোগী। বেশি শীত এবং সাময়িক জলাবদ্ধতা ও লবণাক্ত সহিষ্ণু গুণাগুণ এ গাছের আছে। ফুল ফোটা ও ফল ধরার সময় বেশি বৃষ্টিপাত ভালো না। একই কারণে এ দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় উপকূলীয় এবং পার্বত্য জেলাগুলোতে সৌদি খেজুর চাষ সস্প্রসারণ করার সুযোগ আছে। বেলে-দো-আঁশ মাটি এ জাতের খেজুর চাষের জন্য বেশি উপযোগী। সরেজমিনে তার ক্ষেতে গিয়ে দেখা গেছে, সাতবাড়িয়া ও মির্জা নগরের সাইফুলের দুইটি খেজুর বাগান রয়েছে। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মহাদেব চন্দ্র সানা বলেন, বাংলাদেশে আবাহাওয়ায় বারী, খলিজি ও খালাদ জাতের খেজুর চাষ খুবই উপযোগী। আর এ জাতের খেজুর খেতেও খুব সুস্বাদু। একবার লাগালে ৩০ থেকে ৩৫ বছর ফল খাওয়া ও বাজারজাত করা যায়। এটা অত্যন্ত লাভজনক একটি ফসল।

Previous articleসিলেটে নারীসহ ‘মাদক সম্রাট’ পুলিশের হাতে আটক
Next articleসাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে বেনাপোলে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।