জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে অন্যের পৈতৃক সম্পত্তি রাতের আঁধারে জবর দখল করে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় মির্জানগর গ্রামের ফজলে রহমান বাদী হয়ে ঐসব ভুমিদস্যুদের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে ফজলে রহমান উল্লেখ করেন, তার ও তার ভাই মাহাবুর রহমানের পৈতৃক সূত্রে পাওয়া মির্জানগর মৌজার জে.এল নং-১১, এস.এ খতিয়ান ৮৭২, সাবেক -৩৫৮ দাগের ৮০ শতক জমির মধ্যে ২৭ শতক নালিশী সম্পত্তি উপজেলার মির্জানগর গ্রামের মৃত শেখ হাফিজুর রহমানের ছেলে আবুল কাসেম ও আব্দুর রশীদসহ অজ্ঞাতনামা ৫/৭জন ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে লোভের বসঃবতি হয়ে জোর করে দখল নেবার চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে যশোর বিজ্ঞ আদালতে গত ২৯/০৩/১৭ তারিখ একটি দেওয়ানী মামলা করা হয়। যার মামলা নং-৫৫/২০১৭। উক্ত মামলার রায় আমাদের পক্ষে হওয়ায় স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বরসহ এলাকার গন্যমান্যব্যক্তি বর্গ শালিশ মিমাংসার মাধ্যমে উক্ত জমি মাপজোপ করে শান্তিপূর্নভাবে আমাদের সত্ব দখল বুঝিয়ে দেয়। সেই থেকে উক্ত জমি আমরা ভোগদখল করে আসছি। এমতবস্থায় বিবাদীসহ আরো ৫/৭জন মিলে গত বুধবার রাতের আঁধারে (০৩-০৩-২১) আমাদের দখলীয় জমিতে কলাগাছ রোপন করে জবর দখল নেয়। উক্ত ঘটনাটি রাতের বেলা হওয়ায় বাঁধা দেওয়া সম্ভব হয়নি। পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে উক্ত বিবাদীগনকে গাছ রোপনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে তারা আমাকেসহ পরিবারের লোকজনদেরকে খুন জথমের হুমকী প্রদান করে। বর্তমানে আমিসহ আমার পরিবারের লোকজন তাদের ভয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এঘটনায় দখলীয় সম্পত্তি পুনঃউদ্ধারে গত বৃহস্পতিবার তিনি বাদী হয়ে ভুমিদস্যু কাসেম ও রশিদসহ অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।
এব্যাপারে অভিযুক্ত আব্দুর রশীদ সাংবাদিকদের জানান, তিনি পরের জমিতে নয়, তার রেকর্ডীয় সম্পতির উপর গাছ লাগিয়েছেন।
এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম উদ্দীন জানান, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous articleতাঁতশিল্পকে পূনরুজ্জীবিত করণে অবদান রাখায় নারী উদ্যোক্তা জান্নাত লোপাকে সংবর্ধনা প্রদান
Next articleশিক্ষামন্ত্রীকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় বেরোবি উপাচার্য কলিমউল্লাহর কুশপুত্তলিকা দাহ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।