বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সেতু নির্মানের কাজ শেষ হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় চালু হচ্ছে না মুলাদী উপজেলার রামারপোল-সাহেবেরচর সংযোগ সেতু। উপজেলার আড়িয়ালখাঁ নদীর উপর নির্মিত ৭০ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত সেতুটি কোনো আসছে না। এদিকে সেতুর কাজ সমাপ্ত হওয়ার পরে রামারপোল-সাহেবেরচর খেয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। তারা বালুর বস্তা, বাশের সিড়ি তৈরি করে সেতু দিয়ে কোনোমতে চলাচল করছে। জানাগেছে রাজধানী ঢাকার সাথে সড়ক যোগাযোগের লক্ষ্যে ২০১৪ সালে আড়িয়ালখা নদীর উপর নাজিরপুর ইউনিয়নে সাহেবেরচর-রামারপোল সংযোগ সেতুর কাজ শুরু হয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ২০১৮সালে কাজ শেষ করে চলে যায়। কিন্তু সেতুর সংযোগ সড়কের জন্য কাজ পান বরিশালের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দারা কনস্টাকশন লিঃ। ২০১৮ সালের প্রথম দিকে ৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকা ব্যায়ে নির্মিতব্য সংযোগ সেতুর বালু ভরাট করেই ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দেন। পরে বর্ষার পানিতে অধিকাংশ বালু নেমে গেলে সংযোগের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে ঠিকাদার কাজ না করায় দীর্ঘ ৩ বছরেও ওই সেতুর সংযোগ সড়কের কাজ শেষ হয়নি। স্থানীয় পিন্টু সিকদার জানান সেতু নির্মানের কাজ শেষ হওয়ার পর পরই খেয়াঘাটের ইজারা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সেখানে কোনো খেয়া চলছে না। সাধারণ মানুষ সেতু দিয়েও স্বাভাবিক ভাবে যাতায়াত করতে পারছেন না। এতে ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সংযোগ সড়কের কাজ শেষ হলে ঢাকার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হতো। এব্যাপারে ঠিকাদার আবুল কালাম ওরফে কালু জানান প্রয়োজনীয় মাটি না পাওয়ায় সংযোগ সড়কের কাজ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। সড়ক বিভাগের বিশেষজ্ঞ দলের জন্য আবেদন করা হয়েছে। সড়ক বিভাগ যে পরামর্শ দিবেন সেই মোতাবেক সংযোগ সড়কের কাজ করা হবে। এলজিইডি’র প্রকৌশলী জিয়াউল হক জানান সংযোগ সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ করার জন্য বিল বন্ধ রেখে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কয়েক বার চিঠি দেওয়া হয়েছে। ঠিকাদার কাজ করতে ব্যর্থ হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleঠাকুরগাঁও পৌরসভায় নবনির্বাচিতদের দায়িত্বভার হস্তান্তর
Next articleবনশ্রীতে পরকীয়া বাঁচাতে লাখ টাকায় খুনি ভাড়া, প্রাণে বাঁচলেন স্বামী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।