তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মোঃ মুন্না (১৩) নামের এক কিশোরের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৭ মার্চ) দুপুরে পৌরসভার নয় নাম্বার ওয়ার্ডের-পশ্চিম কেরোয়া গ্রামের আফিয়া-হারুন নুরানী হাফিজিয়া মাদরাসায় মৃত অবস্থায় সরকারি হাসপাতালে নিলে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনার পর মাদরাসা সুপার মাওলানা মোঃ মুজাম্মেল হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত কিশোর মুন্না কেরোয়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী কামাল হোসেন ও মমতাজ বেগম নামের দম্পতির তিন সন্তানের মধ্যে মেঝ সে। এই মর্মান্তিক ঘটনায় ওই পরিবার ও স্থানীয় লোকজনের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

নিহত শিশুর মা মমতাজ বেগমের ভাষ্য, বড় ছেলে ঢাকার উত্তরা একটি কলেজে স্নাকোত্তরে পড়ছে। মেঝ ছেলে স্থানীয় একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত।-করোনার সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় মুন্নাকে ওই মাদরাসায় কোরান পড়ার জন্য গত আগষ্ট মাসে ভর্তি করান তিনি। বুধবার দুপুরে ওই মাদরাসায় খাওয়ার পর প্রচুর বুমি করে মাটিতে লুটে পড়ে মুন্না। এ অবস্থায় দ্রুত মুন্নাকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন। তবে শিশুটির শরীরে আঘাতের কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি ও হাসপাতালে আসার আগেই শিশুটি মারা যায় বলে কর্তব্যরত ডাক্তার সিরাজুম মুনিরা জানান।।

শিশুর মা মমতাজ বেগম বলেন, আমার শিশু বাচ্চাকে মাদরাসা সুপার হত্যা করেছে। তবে কিভাবে মারছে তা বুঝতেই পারছি না। আমার ওইটুকু শিশুকে যারা হত্যা করেছে, তাদের বিচার চাই।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল জানান, কিভাবে এমন ঘটনা ঘটাল, তা এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ঘটনার তদন্ত করে প্রকৃত আসামিদের আইনের আওতায় আনা হবে। তবে জিজ্ঞাবাদের জন্যমাদরাসা সুপার মোঃ মুজাম্মেল হোসেনকে আটক করা হয়েছে।

Previous articleবিলুপ্তির পথে লাঙল দিয়ে হাল চাষ
Next articleশাহজাদপুরে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।