ফজলুর রহমান: আধুনিকতার স্পর্শে ও বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের ফলে কৃষকদের জীবনে এসেছে নানা পরিবর্তন। আর সেই পরিবর্তনের ছোঁয়াও লেগেছে কৃষিতে। তাই বিজ্ঞানের ছোঁয়ায় কৃষিতে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। এ কারণে কাক ডাকা ভোরে কাঁধে লাঙল-জোয়াল আর জোড়া গরুর দড়ি হাতে নিয়ে মাঠে যেতে দেখা যায় না গ্রাম অঞ্চলের কৃষকদের। তাই দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য লাঙল দিয়ে হালচাষ। বর্তমানে হাল চাষের পরিবর্তনে এখন ট্রাক্টর অথবা পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করা হয়। এক সময় দেশের বিভিন্ন জেলার উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে কৃষক গরু পালন করতো হাল চাষ করার জন্য। আবার কিছু মানুষ গবাদিপশু দিয়ে হাল চাষকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। অনেকে তিল, সরিষা, কলাই, পাট ও আলু চাষের জন্য ব্যবহার করতেন। এখন আর চোখে পড়ে না গরুর লাঙল দিয়ে চাষাবাদ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কয়েকজন কৃষক এই যান্ত্রিক যুগেও জমিতে হালচাষ দিয়ে ফসল ফলাচ্ছেন। তারা বলেন বাপদাদার ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে এখনও নিজেদের গরু লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ দিচ্ছেন ফসল করার জন্য। আধুনিকতার স্পর্শে অধিকাংশ কৃষক ও কৃষিকাজের সাথে সম্পৃক্ত জনেরা যখন স্রোতের তালে গা ভাসাতে ব্যস্ত তখন প্রত্যন্ত অঞ্চলের কৃষকদের এই ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা সত্যি প্রশংসনীয়। অনেকে আবার জমি চাষের প্রয়োজন হলেই অল্প সময়ের মধ্যেই পাওয়ার টিলারসহ আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে চালাচ্ছে জমি চাষাবাদ। তাই এ কাজের সাথে সংশ্লিষ্টরা এখন পেশা বদল করে অন্য পেশার দিকে ঝুঁকে পড়ছেন।

Previous articleপাবনায় জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালন
Next articleরায়পুরে কিশোরের রহস্যজনক মৃত্যু: মাদরাসা সুপার আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।