জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে স্ত্রীর পরকীয়ায় বাঁধা হয়ে দাঁড়ানোর কারনেই বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সোহেল হাসান আইদকে হত্যার মূল পরিকল্পনার ছক কষেছিল তার নিজের স্ত্রী জামিলা পারভীন। এঘটনায় আইদ বাদী হয়ে গত সোমবার (১৫ মার্চ-২১) হত্যা চেষ্টার মুল পরিকল্পনাকারী তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী ও ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যশোর আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছে। আদালতের মামলা সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর শহরের হাসপাতাল মোড়ের মৃত মাদার মোড়লের ছেলে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সোহেল হাসান আইদ ১৯৯৫ সালে একই উপজেলার দোরমুটিয়া গ্রামের ছুরমান মোল্যার মেয়ে জামিলা পারভীনকে মুসলিম শরিয়া মতে ৫০ হাজার টাকা কাবিনে বিয়ে করেন। বিয়ের ৫ দির পর জীবিকার তাগিদে তিনি মালয়েশিয়া যান। সেখান থেকে ৪ বছর পর তিনি আবার বাড়ীতে ফিরে আসেন। তিনি বিদেশে থাকাকালীন সময়ে রিপন নামে এক জনৈক ব্যক্তির সাথে তার স্ত্রী পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে। স্ত্রীর সাথে সংসার চলাকালীন সময়ে তার ঔরষে ২টি সন্তান জন্মগ্রহন করেন। স্ত্রীর পরকীয়ার বাঁধা হয়ে দাড়ায় আইদ। তাই তাকে হত্যার পরিকল্পনার ছক কষে স্ত্রী জামিলা। পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রেমিক রিপনকে দিয়ে স্বামীকে মারার প্লান করে স্ত্রী। ২০০৭ সালের ২১ জুন হত্যার উদ্যেশ্যে ১ম দফায় প্রেমিক রিপন ও ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে ঘাতক স্ত্রী তার স্বামীর উপর হামলা চালায়। অল্পের জন্য মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পান আইদ। স্বামীকে মারতে ব্যর্থ হয়ে পরকীয়ার টানে বিয়ের ১০ বছর পর প্রেমিক রিপনের হাত ধরে ব্যবহৃত স্বণালংকার ও নগদ ২ লক্ষ ৩ হাজার ৫শ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায় জামিলা । এঘটনায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে তিনি কেশবপুর থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন। যার নং-৩৯৩। তারিখ-০৯-১০-১০ ইং। প্রায় ৩ মাস প্রেমিকের সাথে অবস্থান করার পর জামিলা একা তার বাবার বাড়ীতে ফিরে আসে। এর কিছু দিন পর জামিলার ভাই কেশবপুর শহরের তৃষা প্লাজার মালিক এসিড খালেক বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে আইদকে মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে এক পর্যায়ে ৩০-০১-১১ তারিখ ২ লক্ষ টাকা কাবিনে পুনরায় জোর করে বিয়ে দিয়ে দেয়। দ্বিতীয় বার বিয়ের পরও রপনের সাথে পরকীয়া অব্যাহত থাকে জামিলার। ২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল আইদকে একটি নাশকতা মামলায় পুলিশ আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করে। জেল থেকে বের হলেই ২য় দফায় তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে স্ত্রী। এমনকি তাকে হত্যার জন্য সন্ত্রাসী ভাড়া করতে সুফিয়া বেগম শেখা নামে এক এনজিও কর্মির কাছে ২০ হাজার টাকা দেয় তার স্ত্রী । জেল থেকে বের হয়ে স্ত্রীর পরিকল্পনার কথা জানতে পারায় ২য় দফার হামলা থেকে রক্ষা পায় আইদ। এদিকে ব্যবসায়ীক লেনদেন সংক্রান্তে কেশবপুর সাহাপাড়ার সুবির কুন্ডুর কাছে ১৩ লক্ষ টাকা পেতে যায় আইদ। এক পর্যায়ে সুবিরের কাছ থেকে সে একটি চেক গ্রহন করেন। সেই চেক ব্যবহার করে তিনি সুবিরের বিরুদ্ধে এন আই এ্যাক্টের ১৩৮ ধারার চেক ডিজঅনারের একটি মামলা করে। মামলার কারনে সুবিরের সাথে তার সম্পর্কের অমিল হওয়ায় এই সুযোগটি কাজে লাগায় তার স্ত্রী। তাকে হত্যা করতে তার স্ত্রী হাত মেলায় সুবিরের সাথে। স্বামীকে হত্যার বিনিময়ে সুবির পাবেন তার বিরুদ্ধে দায়ের করা চেকের মামলার মূল চেক। স্ত্রী ও সুবির মিলে তাকে হত্যার চুড়ান্ত পরিকল্পনা তৈরি করে। তাকে মারার জন্য ভাড়া করা হয় মধ্যকুল গ্রামের জামাল বাহিনীর প্রধান জামাল, উপজেলা পাড়ার সৌরভসহ বহিরাগত সন্ত্রাসীদের। স্ত্রী ও সুবিরের মাষ্টার প্লান অনুযায়ী ১৮-০৭-২০১৯ তারিখ রাত অনুমান ১১ টার সময় ঐসব ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা হত্যার উদ্দেশ্যে কেশবপুর শহরের পশু হাসপাতালের সামনে তার উপর ৩য় দফায় হামলা করে । মৃত ভেবে ফেলে রেখে চলে যায় সন্ত্রাসীরা। কিন্তু আল্লাহর কৃপায় এবারেও মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে যায় তিনি। সর্বশেষ তিনি সদ্য অনুষ্ঠিত ২৮ ফেব্রয়ারী কেশবপুর পৌরসভা নির্বাচনে ১ নং ওয়ার্ড থেকে বিএনপি মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়েন। নির্বাচনে তার বিরোধী প্রার্থীর সাথে হাত মিলায় তার স্ত্রী এমনকি নির্বাচনের দিন তার সামনের উপর প্রেমিক রিপনকে সাথে নিয়ে তার বিপক্ষ প্রার্থীর কাজ করেন স্ত্রী জামিলা। এই ঘটনা দেখে তিনি হতবাক হন। স্ত্রীর প্রেমিককে দেখে তিনি আবারো ভয়ে আতংকিত হয়ে ওঠেন এবং যে কোন সময় তিনি জীবন ঝুকিতে পড়তে পারেন জেনে গত ০২-০৩-২১ তারিখ মনিরামপুর পৌরসভার নেকাহ রেজিঃ ও কাজী মাহাবুবুর রহমানের মাধ্যমে তার স্ত্রীকে তালাক প্রদান করেন। স্বামী আইদ এর বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ও হত্যার মূল পরিকল্পনার মোবাইল রেকর্ডসহ অজানা অনেক তথ্য সংগ্রহপূর্বক স্ত্রী জামিলা পারভীনকে ১ নং,সুবির কুন্ডুকে ২নং,জামাল শেখকে ৩নং ও সৌরভ কে ৪নং আসামী করে গত ১৫ মার্চ যশোর সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লা আল মামুনের আদালতে সোহেল হাসান আইদ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলা নং-সি.আর ১০২/২১। বিজ্ঞ আদালাত সেটি আমলে নিয়ে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন জমা প্রদানের জন্য কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন। এবিষয় কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ জসিম উদ্দীন বলেন, আদালতের কপি এখনও হাতে পাইনি, পেলে তদন্তপূর্বক যথা সময়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

Previous articleপাবনার চাটমোহরে ভয়াবহ আগুনে ১২টি পরিবার নি:স্ব
Next articleসাংবাদিক জয়নাল আবেদীনের নতুন বই মুজিব জন্মশতবাষির্কী ‘জয়নালের ছড়া’র মোড়ক উন্মোচন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।