বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মাদারীপুরে পরিচয় গোপন রেখে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দশম শ্রেণির স্কুলছাত্রীকে আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) রাতে নির্যাতিতার বাবা বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। পরে অভিযান চালিয়ে ৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সদর উপজেলার ঝাউদি গ্রামের আবেদ আলী আকনের ছেলে আব্দুর রহমান (২৫), শহরের বৈশাখী আবাসিক হোটেলের ম্যানেজার আলাউদ্দিন কবিরাজ (৫০), সদর উপজেলার গৌদি গ্রামের আব্দুর রহিম মুন্সীর ছেলে রাকিব মুন্সী, একই উপজেলার তালতলা গ্রামের আনোয়ার সরদারের ছেলে মুরাদ সরদার (২২)।

ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, আড়াই বছর আগে মাদারীপুর সদর উপজেলার ঝাউদি গ্রামের আব্দুর রহমান পরিচয় গোপন করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দশম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। নিজেকে অবিবাহিত দাবি করে বৃহস্পতিবার সকালে শহরের একটি আবাসিক হোটেলে শিক্ষার্থীকে নিয়ে আসে আব্দুর রহমান। পরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শিক্ষার্থীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। সন্ধ্যার দিকে ওই শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়লে আবাসিক হোটেল থেকে নিয়ে গিয়ে ভুল তথ্য দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করে অভিযুক্ত। বিষয়টি সন্দেহ হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে আব্দুর রহমানকে থানায় নিয়ে আসে। পরে নির্যাতিতার বাবা বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

শুক্রবার (১৯ মার্চ) বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ জনকেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, মূল অভিযুক্ত আব্দুর রহমানসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। শিগগিরই তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিট দেওয়া হবে।

Previous articleএমনভাবে খেলতে হবে যাতে বিজেপি জীবনেও খেলতে না পারে: মমতা
Next articleবাংলাদেশ হবে অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ: প্রধানমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।