তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে টাকার বিনিময়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির ৪১ সদস্য বিশিষ্ট ‘পকেট’ কমিটি গঠন করা হয়েছে। গঠনতন্ত্রের বিরুদ্ধে গিয়ে সাবেক দুইবারের সভাপতি মিজানুর রহমান দেওয়ানকে পুনরায় আহবায়ক করা হয়। একই সঙ্গে পূর্বের কমিটি বাতিল নিয়ে কোনো ধরণের চিঠি ইস্যু করা হয়নি। বিতর্কিত এ কমিটিতে ১৭ জনই জামায়াতের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) রাতে রায়পুর উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সামছুল আলম এসব অভিযোগ করেছেন।

এ নিয়ে সক্রিয় শিক্ষকদের বৃহৎ একটি অংশ জেলা কমিটির আহবায়ক মো. নুরনবী, সদস্য সচিব ফিরোজ আলম ও বিতর্কিত উপজেলা কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন। তাদের বিরুদ্ধে অন্যান্য শিক্ষকদের গণস্বাক্ষর নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এদিকে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আহবায়ক কমিটির ৬ মাস মেয়াদ হলেও জেলার কমিটির ৭ বছর পার করেছে। এখনো পূর্ণাঙ্গ হয়নি। কেন্দ্র থেকেও তাদের কমিটির মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়নি বলে জানা গেছে। মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব টাকার বিনিময়ে রায়পুরে পকেট কমিটি গঠন করায় শিক্ষকদের বৃহৎ অংশের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে।

অভিযোগ রয়েছে, বিতর্কিত এ কমিটির আহবায়ক মিজানুর রহমান দেওয়ান পর পর দুই মেয়াদে সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। যদিও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পর পর দুই মেয়াদের বেশি কেউ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকতে পারবেন না।

উপজেলা শিক্ষক সমিতি সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ২০ নভেম্বর ৫ বছরের জন্য ভোটের মাধ্যমে মিজানুর রহমান দেওয়ান সভাপতি ও সামছুল আলম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে তাদের ৬১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক অনুমোদন দেয়। এদিকে গত ১৪ মার্চ দক্ষিণ রায়পুর বিএন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নেতা ফিরোজ আলম ও মিজানুর রহমান উপজেলা শিক্ষকদের একাংশকে নিয়ে সভার আয়োজন করেন।

উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলমকে কিছুই জানানো হয়নি। হঠাৎ করে ১৬ মার্চ গভীর রাতে ফিরোজ আলম নিজের ব্যবহৃত ফেসবুক আইডিতে একটি আহবায়ক কমিটি তালিকা প্রকাশ করেন। জেলা কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব ওই কমিটির অনুমোদন দেন। যদিও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী উপজেলা কমিটি বাতিল ও আহবায়ক কমিটি দেওয়ার এখতিয়ার শুধুমাত্র কেন্দ্রীয় কমিটির হাতে রয়েছে।

উপজেলা কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সামছুল আলম বলেন, আমাকে সদস্য সচিব মনোনীত করার কথা বলে ফিরোজ আলম ২০ হাজার টাকা নিয়েছে। কিন্তু আমাকে সদস্য সচিব করতে না পেরে ১৫ হাজার টাকা ফেরত দেয়। সালিসি বৈঠকে আগামি ১ সপ্তাহের মধ্যে বাকি টাকা ফেরত দেবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম বলেন, টাকার বিনিময়ে পকেট কমিটি করা হয়েছে। ওই কমিটিতে ১৭ জন জামায়াত সমর্থক অন্তর্ভূক্ত রয়েছে বলে শুনেছি। বিষয়টি গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ ১ (ক) অনুযায়ী মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পরিপন্থী।

বিতর্কিত কমিটির আহবায়ক মিজানুর রহমান দেওয়ান বলেন, এটি পেশাজীবী সংগঠন। এখানে জামায়াত থাকতে পারবে না বলে কোনো নির্দেশনা নেই বলে দাবি করেছেন তিনি।

জেলা কমিটির আহবায়ক নুরনবী বলেন, আগের কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ ছিলো। এজন্য নতুন করে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। টাকা লেনদেনের বিষয়টি সত্য নয়। শতাধিক শিক্ষকের উপস্থিতিতে বৈঠক করে আগের কমিটি বাতিল করা হয়েছে। তবে কমিটি বাতিল সংক্রান্ত চিঠির ব্যাপারে সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাবেরা বেগম বলেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলার নেতাদের উপজেলা কমিটি বাতিল ও আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। পরপর দুই মেয়াদের বেশি কেউই সভাপতি-সম্পাদক পদে থাকা গঠনতন্ত্র বিরোধী। টাকার বিনিময়ে কমিটি ও জামায়াতের সমর্থকদের দিয়ে আহবায়ক কমিটি গঠনের বিষয়টি আমার জানা নেই। সভাপতির সঙ্গে কথা বলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা কমিটির বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবো।

Previous articleশাহজাদপুরে ট্রাক-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩
Next articleআড়াই মাস পরে কেশপুরে আলোচিত ভ্যান চালক ইদ্রিস হত্যার রহস্য উৎঘাটন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।