জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে দীর্ঘ আড়াই মাস পরে ভ্যান চালক ইদ্রিস(১৪) হত্যার রহস্য উৎঘাটন করেছে পুলিশ। এসময় চোরাই ৫ ভ্যান ও সরঞ্জামাদিসহ ৬ জনকে আটক করছে পুলিশ।

ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণ ঃ ০১-০১-২০২১ তারিখ সকাল ৯টার সময় কেশবপুর থানাধীন মঙ্গলকোট কমিউনিটি ক্লিনিকের দক্ষিণ পাশ এলাকা হতে ইদ্রিস আলী (১৪) নামের এক ব্যাটারী চালিত ভ্যান চালকের লাশ উদ্ধার করে কেশবপুর থানা পুলিশ। ৩১-১২-২০২০ তারিখ সকাল ৬টায় সময় প্রতি দিনের ন্যায় ভ্যান চালক ইদ্রিস ভ্যান নিয়ে বাড়ী থেকে বের হয়। সন্ধ্যার পর বাড়ীতে না ফিরে আসলে তার মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে মোবাইল ফোনটি বন্ধ পায় পরিবারের লোকজন। সারা রাত বিভিন্ন জায়গায় খোঁজা- খুজিতেও সন্ধান মেলে না ইদ্রিস আলীর। পরের দিন ০১-০১-২০২১ তারিখ নতুন বছরের শুরুর দিন সকাল ৯টার সময় মঙ্গলকোট কামউনিটি ক্লিনিকের দক্ষিণ পাশ থেকে তার মৃত দেহ পাওয়া যায়। মাথায় আঘাত করে কে বা কাহারা তাকে হত্যা করে তার ব্যবহৃত ভ্যান, মোবাইল, টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই শ্রীফলা গ্রামের সাহাবুদ্দিনের পুত্র আঃ কুদ্দুছ, বাদী হয়ে এজাহার দায়ের করেন। কেশবপুর থানার মামলা নং-০২, তাং-০১-০১-২০২১ ইং। ধারা-৩০২/৩৯৪/২০১/৩৪ । গ্রেফতার ও উদ্ধার অভিযান ঃ এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশের একাধিক টিম গোপন ও প্রকাশ্যে তদন্ত শুরু করে। ঘটনাটি ক্লুলেস ও চাঞ্চল্যকর হওয়ায় মামলাটি ইং ২৭-০১- ২০২১ তারিখে জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর তদন্তভার ন্যাস্ত করেন জেলার পুলিশ সুপার। তারই ধারাবাহিকতায় পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, বিপিএম (বার), পিপিএম মহোদয়ের দিক-নির্দেশনায় সোমেন দাশ, অফিসার ইনচার্জ, জেলা গোয়েন্দা শাখার(ডিবি) একটি চৌকস টিম ইং ০৫-০৩-২০২১ তারিখে মনিরামপুর থানাধীন কাশিমনগর সাকিনে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোরাই ভ্যান ক্রয়/বিক্রয়কালে ১ জনকে চোরাই ভ্যান ও সরঞ্জামসহ হাতে নাতে আটক করেন। এই সংক্রান্তে মনিরামপুর থানায় পৃথক একটি মামলা রুজু হয়। ঐ ঘটনায় পলাতক মনিরামপুরের সোহেল রানা ও কেশবপুরের নাজমুল ইসলাম ইমরান নামের ভ্যান চোরের সন্ধ্যানে নামে ডিবি পুলিশ। এক পর্যায়ে ইং ১৭-০৩-২০২১ তারিখ বেলা ১টার সময় চাঁচড়া চেকপোষ্ট এলাকা হতে প্রধান চোর নাজমুল ইসলাম, ইমরান ও সোহেলসহ ৩ জনকে আটক করে তাদের স্বীকারোক্তি মতে কোতয়ালী থানাধীন ঘোপ বেলতলা ডিআইজি রোড থেকে আবতাবকে আটক করা হয়। এসময় তার হেফাজত থেকে চোরাই ভ্যান ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ পেয়ে কেশবপুর ইদ্রিস হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক কাজী মাসুম ও পুলিশ পরিদর্শক রুপন কুমার সরকার, পিপিএম ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে কেশবপুরের ইদ্রিস হত্যার ঘটনাসহ একাধিক ভ্যান চুরির ঘটনা স্বীকার করে ইমরান ও সোহেল চোরচক্র। তাদের স্বীকারোক্তি মতে ধারাবাহিক অভিযানে মনিরামপুর তাহেরপুর থেকে রশিদ নামের আরেক জনকে আটক করে ইং ১৭-০৩-২০২০ তারিখ বিকাল ৫টার সময় কেশবপুর থানাধীন বাজিতপুর সাকিনে হত্যা মামলার ছিনতাইকৃত ব্যাটারী চালিত ভ্যান গাড়িটি উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। চোর নাজমুল ইসলাম, ইমরান হত্যা মামলার ঘটনাস্থলে গিয়ে হত্যা ও ছিনতাইয়ের আধ্যুপান্ত বর্ননা দেয়। এছাড়া কেশবপুর থানাধীন ছোট পাথরা, পাঁজিয়া ও হদ গ্রামে ঘটনার আগে ও পরে একাধিক ভ্যান চুরির ঘটনা বর্ননা দেয় এবং ভুক্তভোগীদের বাড়ী সনাক্ত মহোড়া করে ডিবি পুলিশ। তাদের স্বীকারোক্তি মতে মনিরামপুর কাশিপুর বাজারে রফিকুল ইসলামের অটো রিক্সা গ্যারেজ হতে ২টি চোরাই ব্যাটারী চালিত ভ্যান ও সরঞ্জামাদি উদ্ধারসহ রফিকুল ইসলামকে আটক করে ডিবি পুলিশ। মোট ৬ জনকে আটক করে হত্যা মামলার ছিনতাইকৃত ব্যাটারী চালিত ভ্যান গাড়ীসহ মোট ৫টি ভ্যান ও সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। চোরাই উদ্ধার সংক্রান্তে এসআই(নিঃ)/মফিজুল ইসলাম, পিপিএম, বাদী হয়ে কোতয়ালী মডেল থানায় এজাহার দায়ের করে এবং পৃথক মামলা রুজু হয়। এঘটনায় কেশবপুরের ভ্যান চালক ইদ্রিস হত্যা মামলাতেও গ্রেফতার করে তাদেরকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ভ্যান ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ভ্যান চালক ইদ্রিস আলীকে ভাড়া করে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘটনাস্থলে নিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করে লাশ ঘুম করে ও ব্যবহৃত ভ্যান গাড়িটি নিয়ে চলে যায়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের নাম ঠিকানা ঃ কেশবপুর উপজেলার কন্দর্পপুর গ্রামের তকোববার মোড়লের ছেলে নাজমুল ইসলাম ইমরান(২১),মনিরামপুর উপজেলার দোনার গ্রামের আশরাফ আলী বিশ^াসের পুত্র মোঃ সোহেল রানা সুমন(২৩), একই উপজেলার কাশিপুর মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত আকাম সরদারের পুত্র মোঃ সাহিদুল ইসলাম সাইদুর(২৮), কাশিপুর দক্ষিণ পাড়ার আব্দুল কাদের সরদারের পুত্র মোঃ রফিকুল ইসলাম(৫০), নড়াইল জেলার রামচন্দ্রপুর পূর্বপাড়ার জয়নাল মোল্যার পুত্র মোঃ আবতাব মোল্যা(৪৫)ও তাহেরপুর গ্রামের মৃত মোমিন বিশ^াসের পুত্র আব্দুর রশিদ(৫০)কে পুলিশ আটক করে। উদ্ধারকৃত আলামত ঃ হত্যা মামলার ছিনতাইকৃত ব্যাটারী চালিত ভ্যানসহ মোট ০৫টি ভ্যান এবং ব্যাটারী, চেসিস, ফ্রেম, চাকা, মটরসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম ও ৫টি মোবাইল সেট। পুলিশ সকল আসামীকে আটকের পর গতকাল সাংবাদি সন্মেলনের মাধ্যমে জানান। পুলিশ সাংবাদিকদের জানান এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে জেলার বিভিন্ন স্থানে কৌশলে মোটরভান ভাড়া করে নিয়ে যাত্রীবেশে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াত। সুযোগ বুঝে সন্ধ্যার পরে ভ্যান চালককে হত্যা করে লাশ ফেলে দিয়ে ভ্যান নিয়ে পালিয়ে যেত।

Previous articleটাকার বিনিময়ে শিক্ষক সমিতির কমিটিতে ১৭ জামায়াত নেতা !
Next articleউল্লাপাড়ার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাঝে শিক্ষার আলো
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।