বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নে তাছলিমা বেগম (২৬) নামের এক গৃহবধূকে বাড়িছাড়া ও তার পরিবারকে সমাজচ্যুত করার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগীর অভিযোগ, এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী তাকে ধর্ষণচেষ্টা করায় তিনি আদালতে মামলা দায়ের করেন। আর এই মামলার কারণে আজ সে বাড়িছাড়া।

জানা গেছে, সুবর্ণচর উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নের মধ্য কেরামতপুর গ্রামে দুই সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন ওই গৃহবধূ। স্বামী চট্টগ্রামের চাকরি করার সুবাদে তাকে দীর্ঘদিন ধরে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল একই এলাকার কেফায়েত উল্যাহ ও বাহার উদ্দিন। এর সূত্র ধরে গত বছরের ৮ আগস্ট সকাল ১০টায় তার বাড়িতে এসে ঘরে ঢুকে কেফায়েত উল্যাহ ও বাহার গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টা চালায়। গৃহবধূর চিৎকারে তার বাবা এগিয়ে আসলে কেফায়েত ছুরির হাতল দিয়ে গৃহবধূর মাথায় আঘাত করলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। এ সময় বাহার ও কেফায়েত তার বাবা সাহাব উদ্দিনকেও মারধর করে পালিয়ে যায়।

পরবর্তীতে বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও কোনো সমাধান না পেয়ে ওই নারী গত বছরের ১০ আগস্ট জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি জুডিশিয়াল তদন্তের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। পরে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নবনীতা গুহ তদন্তপূর্বক ওই বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন।

এ ঘটনায় একাধিক তদন্ত হওয়ার পর আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। পরে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি পুলিশ কেফায়েত উল্যাকে গ্রেফতার করে। বর্তমানে সে জেলা কারাগারে রয়েছে।

গৃহবধূর অভিযোগ, মামলা করার পর থেকে কেফায়েত ও বাহারের লোকজন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে তাকে হুমকি দিতে থাকে। কিন্তু কেফায়েতকে গ্রেফতারের পর তার মাত্রা আরও বেড়ে যায়। নিরুপায় হয়ে গত দুই মাস আগে এলাকা ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াচ্ছে সে।

ভুক্তভোগীর বাবা সাহাব উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় দোকানপাটে আমাদের কাছে কোনো পণ্য বিক্রি করতে নিষেধ করে দিয়েছে তারা। আমাদের বাচ্চাদের মসজিদ, মক্তবে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। এমনকি আমাকে গত ১২ মার্চ জুমার নামাজ পড়তে গেলে মসজিদ কমিটির লোকজন আমাকে মসজিদে যেতেও নিষেধ করে দেন। গত ১৯ মার্চ জুমার নামাজে গেলে মসজিদ কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ কমিটির লোকজন আমাকে মারধর করে গলা ধাক্কা দিয়ে মসজিদ থেকে বের করে দেয়।

তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, কেফায়েতকে গ্রেফতারের পর তার পক্ষে মসজিদ কমিটির সভাপতি এমলাক সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক সোলেমান সওদাগরসহ সমাজপতিরা গত দুই সপ্তাহ আগে বৈঠক করে। এ সময় প্রভাবশালীরা আদালত থেকে মামলা তুলে নিতে বলেন। না হলে আমরা থাকতে পারব না বলে সিদ্ধান্ত দেন।

মধ্য কেরামতপুর আহমদিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা মসজিদের ইমাম বলেন, তাদেরকে সব ধরনের সামাজিক আনুষ্ঠানিকতায় অংশগ্রহণে নিষেধ করা হয়েছে। তবে মসজিদে আসতে নিষেধ করা হয়নি। আমাদের এলাকায় ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটেনি। সড়কের পাশে সিমের বীজ বপনকে কেন্দ্র করে তাদের দুপক্ষের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। এই নারী মামলা করে এলাকাকে কলঙ্কিত করেছেন। সমাজের লোকজন সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদের একঘরে করা হয়েছে।

মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক সোলেমান সওদাগর বলেন, ধর্ষণচেষ্টার মামলা হয়েছে আমরা এটা শুনিনি। আমরা শুনেছি ধর্ষণের মামলা হয়েছে। সে জন্য সামাজিকভাবে তাদের একঘরে করার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

চরক্লার্ক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল বাসার বলেন, স্থানীয় ইউপি সদস্যকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি আমার জানা ছিল না। দ্রুত এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গৃহবধূর মামলার আইনজীবী মো. সাইফ উদ্দিন কামরুল বলেন, মামলায় বিচার বিভাগীয় দুটি তদন্তে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে আদালত। মামলায় অভিযুক্ত প্রধান আসামি কেফায়েত উল্যাহকে গ্রেফতারের পর থেকেই ভিকটিমের পরিবারের ওপর মামলা তুলে নেয়ার জন্য হুমকি ও চাপ আসতে থাকে। মামলা তুলে না নেওয়ায় ভিকটিমের স্বামী সাইফুল ইসলাম ও তার ছোট ভাই আলা উদ্দিনকে আসামি করে মামলার দ্বিতীয় আসামি বাহার উদ্দিনের স্ত্রী প্রিয়া বেগম (৩৫) একই আদালতে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। কিন্তু ধর্ষণের মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তা খারিজ করে দেন।

সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইবনুল হাসান ইভেন জানান, বিষয়টি জানার পরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সমাজচ্যুত করাটা কোনো আইনগত প্রক্রিয়া নয়। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleনড়াইলে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ
Next articleঢাবিতে মোদির কুশপুত্তলিকা কেড়ে নিয়ে ‘চুপ’ থাকতে বলল ছাত্রলীগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।