অতুল পাল: নির্বাচন কমিশনের বরাত দিয়ে সোমবার (২৯ মার্চ) বিভিন্ন গণ মাধ্যমে ইউপি নির্বাচন স্থগিতের খবর প্রকাশ হওয়ায় বাউফলের নয়টি ইউনিয়নের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। জনমনেও দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। বাউফলের একাধিক নতুন চেয়ারম্যান এবং পুরুষ মেম্বার ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা প্রার্থীরা জানান, ১১ এপ্রিল নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা মাথায় রেখে ইতিমধ্যেই প্রচার-প্রচারণায় লাখ লাখ টাকা ব্যায় করা হয়েছে। সমর্থকদের নিয়ে মাঠ গোছানো হয়েছে। এখন গণসংযোগের চূড়ান্ত পর্যায় অতিবাহিত করছি। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এলাকার বাহিরে থাকা শ্রমজীবী, চাকুরিজীবীসহ নানা পেশার মানুষ সংশ্লিষ্টদের থেকে ছুটি নিয়ে আসতে শুরু করেছেন। এমতাবস্থায়, নির্বাচন স্থগিত হওয়া খুবই কষ্টের এবং বিব্রতকর। নতুন প্রার্থীদের দাবি করোনা প্রতিরোধে সকল প্রকার স্বাস্থ্য বিধি মেনে নির্বাচন করুক নির্বাচন কমিশন। অন্যথায় তফশিল অনুযায়ি দেশের ৩৭১ ইউপি নির্বাচনী এলাকায়ই প্রার্থীদের মধ্যে চরম হতাশা নেমে আসবে। আর্থিকভাবেও হাজার হাজার প্রার্থী ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। এদিকে যে সকল প্রার্থী পূরোনো এবং যাদের পূণ:নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ তাদের মুখে আপাতত: একটা স্বস্তির ভাব প্রকাশ পাচ্ছে। বাউফল উপজেলা নির্বাচন কমিশনার মো. সেলিম রেজা জানান, আমরা এখনো নির্বাচন স্থগিতের কোন নির্দেশনা পাইনি। এ বিষয়ে ১ এপ্রিল বিস্তারিত জানা যাবে। উল্লেখ্য, সোমবার (২৯ মার্চ) বিভিন্ন মিডিয়ায় নির্বাচন কমিশনের বরাত দিয়ে প্রথম ধাপের ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচন স্থগিত করেছেন বলে জানান। কিছু কিছু মিডিয়ায় ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে ১ এপ্রিল চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জারানো হবে।

Previous articleঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ
Next articleকলাপাড়ায় শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বৃদ্ধ আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।