ফজলুর রহমান: বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর বালির আস্তরণ পড়ে জমি নিষ্ফলা হবে এমন আশঙ্কায় এক সময় রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ছাওলা ও তাম্বুলপুর ইউনিয়নের তিস্তার চরাঞ্চলের কৃষকদের ঘুম হারাম হয়ে গিয়েছিল। ধু ধু বালুর চরের পতিত জমি নিয়ে যে এলাকার মানুষ ছিল দিশেহারা, সে জমিতে এখন সোনা ফলছে। বাদাম, ডাল, মরিচ, বেগুন, শিম, কপি, পেঁয়াজ, রসুন ছাড়াও শত শত হেক্টর জমিতে রোপন করা হয়েছে ভুট্টা। বন্যার পর প্রকৃতি যেন তার সব ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েছে এখানে। আর তা প্রকৃতির নিয়মেই বেড়ে উঠছে। এখন বাইরে থেকে ব্যবসায়ীরা এসে চরাঞ্চলে চাষে বিনিয়োগ করছেন। একরের পর একর জমি লিজ নিয়ে ভুট্টার চাষাবাদ করছেন। রবি শস্যের পাশাপাশি পুরোদমে ভুট্টা চাষ হচ্ছে। গোটা চরাঞ্চলের মানুষ ভুট্টা চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছে। অনেক ভূমিহীন কৃষক হয়েছেন জমির মালিক। অভাবকে দূরে ঠেলে দিয়ে চরাঞ্চলের মানুষ এগিয়ে চলছে সামনের দিকে। সরেজমিনে জানা যায়, কয়েক দশক আগে তিস্তা নদীর গতিপথ বদলের কারণে বিস্তীর্ণ এলাকায় চর জাগে। চরের ধু ধু বালুতে কোনো আবাদ হতো না। বেশির ভাগ জমি অনাবাদি থাকায় এলাকার মানুষ ছিল হতদরিদ্র। অনাবাদি বলে জমিও কেউ কিনতে চাইত না। ফলে চরাঞ্চলের কৃষকদের অভাব লেগেই থাকত। পরে স্থানীয় উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে কৃষকেরা জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে ভুট্টার চাষ শুরু করেন। চরাঞ্চলের কৃষক শাহ আলম মিয়া জানান, প্রথম বছরে এক একর জমিতে ৮-১০ মণ ভুট্টা চাষ হয়। সেই জমিতেই পরের বছর ৩০-৪০ মণ ভুট্টা চাষ হয়। এভাবে ক্রমান্বয়ে বাড়তেই থাকে ভুট্টার ফলন। বর্তমানে এই এলাকায় প্রতি একরে ১২০ থেকে ১৩০ মণ ভুট্টা চাষ হয়। চরাঞ্চলে ভুট্টা চাষ বেশি হওয়ার কারণে শ্রমিকের হাতে সারা বছরই কাজ থাকছে। ভুট্টার ক্ষেত প্রস্তুত, নিড়ানি ও সেচ দেওয়াসহ বিভিন্ন কাজ করেন স্থানীয় শ্রমিকেরা। এ ছাড়া ভুট্টা বড় হলে তা ক্ষেত থেকে সংগ্রহ, মাড়াই, বাছাই, শুকানোসহ নানা কাজে সারা বছরজুড়ে এই এলাকার শ্রমিকেরা ব্যস্ত থাকেন। ভুট্টা থেকে আলাদা করা মোচা ও ভুট্টার গাছ এখন জ্বালািন হিসেবে বিক্রি হচ্ছে। শ্রমের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে গত কয়েক বছরে নারীরাও ব্যাপক ভাবে এসব কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়ে স্বাবলম্বী হয়েছেন। নারী শ্রমিকেরা দৈনিক ৩শ থেকে ৪শ টাকা আয় করেন। ছাওলা ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়্যারম্যান বাদশা আলম জানান, কয়েক বছর আগেও চরাঞ্চলের মানুষ অভাবের কারণে শিশুদের স্কুলে না পাঠিয়ে কাজে লাগিয়ে দিতো। এখন আর তাদের অভাব নেই।

এখন শতভাগ শিশু স্কুলে যাচ্ছে। ভুট্টা চাষ লাভজনক হওয়ার কারণে চরাঞ্চলে তামাক চাষ কমেছে। পীরগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শামীমুর রহমান জানান, উপজেলায় এবারে ২হাজার১ শত হেক্টর জমিতে ভূট্টার চাষ হযেছে। এছাড়া রাজস্ব খাতে ৫০ টি প্রদর্শণী ৫০ বিঘা জমিতে ভূট্টা চাষ করা হয়েছে। প্রদর্শণী কৃষকদের মাঝে সার, বীজ ও সেচের জন্য ১ হাজার করে টাকা প্রদান করা হয়। চরাঞ্চলে ভুট্টা চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে কারণ ভুট্টা অনেক সহনশীল এবং আবাদে ঝুঁকি কম। তাই তারা এখন ভুট্টা আবাদে আগ্রহী বেশি।##৩১-০৩-২০২১ ফজলুর রহমান, পীরগাছা প্রতিনিধি, রংপুর। মোবাইল-০১৭২৪১৩৮৭৬৮

ছবি আছে পীরগাছায় নদী দখল করে পাকাবাড়ী নির্মাণ খননে বাধা পীরগাছা(রংপুর)প্রতিনিধিঃ রংপুরের পীরগাছায় বুড়াইল নদী দখল করে পাকা বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে। নদী পূনঃখননে বাধাগ্রস্থ করার অভিযোগ উঠেছে বাড়ীর মালিকের বিরুদ্ধে। এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার তাম্বুলপুর বুড়াইল নদীটি গত বছর পূনঃখননের জন্য কাজ চলছিল।

Previous articleপাঁচবিবিতে বালুদস্যুর তাণ্ডবে ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলীন, রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতি
Next articleআক্কেলপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৭
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।