প্রদীপ অধিকারী: পাঁচবিবি উপজেলার উপরদিয়ে বয়ে যাওয়া শাখা যমুনা নদীতে বছরের পর বছর বালু দস্যুদের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক তিন ফসলী জমি ও রাস্তাঘাট। পাঁচবিবি উপজেলায় বেশ কয়েকজন বালুদস্যু রয়েছেন তার মধ্যে অন্যতম পাঁচবিবি উপজেলার পার্বতীপুর গ্রামের খোকন মিঞা। এই বালুদস্যু দীর্ঘ ৬- ৭ বছর ধরে পাঁচবিবি উপজেলার ধনঞ্জী ইউনিয়নের বাগুয়ান এলাকায় শাখা যমুনা নদীতে নিষিদ্ধ ও অবৈধ ড্রেজার মেশিন বসিয়ে প্রায় শত ফুট গভীরতা সৃষ্টি করে বালু উত্তোলন করায় নদী তীরের শতশত বিঘা তিন ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে এবং বালু বহনের শত শত ট্রাক্টর যাতায়াত করায় রাস্তাঘাটেরও ব্যপক ক্ষতি সাধন হয়েছে। সেই সাথে নদীর দুই তীরে ব্যাপক ভাঙ্গনের সৃষ্টি এবং বড় বড় জলাশয়ের সৃষ্টি হয়েছে। শুধু বালু বানিজ্য করেই খোকন মিঞা ও তার সহযোগীরা আজ কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। এব্যাপারে বালুদস্যু খোকন মিঞার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি জমি ক্রয় করে বালু উত্তোলন করছি, তবে সরকারিভাবে কোনো ইজারা নেওয়া হয়নি।” পাঁচবিবি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: বরমান হোসেন জানান, “তদন্ত সাপেক্ষে অতি দ্রুত গতিতে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

Previous articleরংপুরে হারভেষ্টার মেশিন ব্যবহারে উৎসাহ বাড়ছে কৃষকদের
Next articleপীরগাছায় তিস্তার চরাঞ্চলে কৃষকরা ভুট্টা চাষ করে স্বাবলম্বী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।