অতুল পাল: বাউফলের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার একাধিক প্রধান শিক্ষক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা গেছে, উপজেলার কালাইয়া হায়াতুন্নেচ্ছা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য একজন কম্পিউটার অপারেটর এবং একজন নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগের জন্য গঠিত নিয়োগ বোর্ডে শিক্ষা মন্ত্রাণলয়ের প্রতিনিধি হিসেবে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, ডিজির প্রতিনিধি হিসেবে একটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। এসময় মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে জনপ্রতি দশ হাজার টাকা দিতে হয়েছে। নিয়োগ পরীক্ষার পর ডিজির কাছে কাগজপত্র পাঠানোর জন্য এখন আবার জনপ্রতি দশ হাজার টাকা দাবি করছেন। একই ঘটনা ঘটেছে উপজেলার হাছান সিদ্দিক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কম্পিউটার অপারেটর, করোনিক এবং নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগের ক্ষেত্রেও। বিষয়টি নিয়ে একাধিক প্রধান শিক্ষকের সাথে আলাপ করা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে সকলেই ওই মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের ঘুষ-বাণিজ্যের কথা স্বীকার করেন। তারা বলেন, অত্যন্ত চতুর প্রকৃতির মিষ্টভাষী ওই মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে টাকা না দিলে কোন ফাইলই ছাড় করেন না। প্রধান শিক্ষকরা বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে মোবাইল ফোনে অবহিত করেছেন। একাধিক প্রধান শিক্ষক জানান, ঘুষ-বাণিজ্যের অভিযোগ রাজনৈতিক নেতাদেরও অবহিত করা হয়েছে। কালাইয়া হায়াতুন্নেচ্ছা বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মূ. হারুনুর রশিদ জানান, নিয়োগ বোর্ডে থাকাকালিন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে দশ হাজার টাকা দিয়েছি। এখন ডিজির কাছে কাগজপত্র পাঠানোর অনুরোধ করলে তিনি আরো দশ হাজার করে টাকা দাবী করেন। এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. নাজমুল হক বলেন, আমার সাথে এবিষয়ে কারো কোন কথাই হয়নি এবং আমার সাথে দেখাও করেননি।

Previous articleতরুণ উদ্যোক্তা শিবলীর সাফল্য: সাপাহারে বিদেশী ফল রক মেলন চাষের উজ্জল সম্ভাবনা
Next articleরাজাপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে গুলিবিদ্ধ ১, বন্দুক উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।