অতুল পাল: বাউফলের সূর্যমনি ইউনিয়নের ইন্দ্রকুল গ্রামে চুরির অপবাদ থেকে রেহাই পেতে স্থানীয় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুটি চাঁদাবাজির মামলা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া জেলা পুলিশ সুপারের কাছেও লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে চুরির ঘটনায় গত ৭ এপ্রিল বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সূর্যমনি ইউনিয়নের ইন্দ্রকুল গ্রামে মৃত.হারুন অর রশিদের ছেলে স্থানীয় চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বাচ্চুর শ্যালক মো. আনিচুর রহমানের ঘরে গত ১৬ মার্চ চুরির ঘটনা ঘটে। চুরির ঘটনায় নগদ টাকা এবং স্বর্ণালংকারসহ প্রায় নয় লাখ টাকার মালামাল খোঁয়া যায়। চুরি যাওয়া মালামাল ফেরৎ পেতে গত ২৬ মার্চ স্থানীয় ইউপি মেম্বার শাহাবুদ্দিন হাওলাদার এবং সন্দেহভাজন চোর একই বাড়ির ফয়সাল হোসেন মিঠুর বাবা আবদুল মান্নানসহ মিঠুর অন্যান্য অভিভাবক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিরা সালিশ বৈঠক করে মিঠুনকে চোর হিসেবে চিহ্নিত করেন এবং এক সপ্তাহের মধ্যে মালামাল ফেরৎ দেয়ার সিদ্ধান্ত দেন। যথা সময়ে মালামাল ফেরৎ না পাওয়ায় মিঠুনের চাচি হামিদা বেগমের সাথে আনিচুর রহমানের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে মিঠুনের চাচি মোসা. হামদিা বেগম চেয়ারম্যান, তার ভাই এবং ছেলেসহ অন্যান্যরা তার কাছে চাঁদা দাবি করেছে মর্মে অভিযোগ এনে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অপরদিকে মিঠুন এবং তার এক আত্মীয় বাদি হয়ে গত ৪ এপ্রিল পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আমলী আদালতে চেয়ারম্যানসহ আট জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করেন। মামলা নং যথাক্রমে সিআর-১৪১/২১ এবং সিআর-১৪২/২১। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. আমিনুল ইসলাম ১৪১ নং মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করেন এবং ১৪২ নং মামলাটি তদন্তের জন্য পটুয়াখালী র‌্যাব-৮ এর কাছে দায়িত্ব দেন। সূর্যমনি ইউনিয়নের ৪,৫,ও ৬ নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের সদস্য মোসা. শাহিনুর বেগম জানান, চুরি যাওয়া মালামাল ফেরৎ না দিয়ে উল্টো চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে মামলা করায় আমরা হতভম্ব। স্থানীয় মেম্বর মো. শাহাবুদ্দিন হাওলাদার জানান, চুরি যাওয়া মামলামাল ফেরৎ দিতে আমরা সালিশ বৈঠক করে সিদ্ধান্ত দিয়েছি। চেয়ারম্যান এবং তার লোকজন চাঁদা দাবি করেছেন এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। চেয়ারম্যানের সুনাম নষ্ট করার জন্য ষরযন্ত্র করে চাঁদাবাজির মামলা দেয়া হয়েছে। চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বাচ্চু জানান, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। কে বা কাহারা, কোথায় এবং কার কাছে চাঁদা দাবি করেছে সে সম্পর্কে আমার কিছুই জানা নেই। আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে জেনেছি। আদালতকে সম্মান জানিয়ে শিঘ্রই হাজির হবো। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) আল-মামুন জানান, পুলিশ সুপার স্যারের কাছে করা অভিযোগ নিয়ে আমরা তদন্ত করছি। আদালতের মামলা সম্পর্কে এখনো কিছু জানি না।

Previous articleটেকনাফে র‌্যাবের হাতে ইয়াবাসহ দুই পাচারকারী আটক
Next articleরায়পুরের মেঘনায় ৫টি নৌকা, কারেন্ট জাল ও ১ টন জাটকা আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।