জয়নাল আবেদীন:” করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগের দিনাজপুরে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে বিভাগে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ৭৬ জন। এ নিয়ে বিভাগের আট জেলায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৭ হাজার ৫শ০৬ জনে পৌঁছেছে, আর মৃত্যু হয়েছে ৩শ৩৪ জনের। বুধবার বিকেলে রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে এই তথ্য পাওয়া গেছে । তথ্যে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) রাত পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় বিভাগের আট জেলার ৩শ৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে নতুন করে আরও ৭৬ জন করোনা সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। একই সময়ে দিনাজপুর জেলায় এই ভাইরাসে আক্রান্ত ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিভাগে সুস্থ্য হয়েছেন ৪৬ জন। এছাড়াও রংপুর বিভাগে গত বছরে ১ লাখ ২২ হাজার ১শ৩১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৭ হাজার ৫শ৬ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে। এই সময়ে অদৃশ্য এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩শ৩৪ জন। এখন পর্যন্ত মোট ১৬ হাজার ১শ২৬ জন রোগী মুক্ত হয়েছেন।স্বাস্থ্য পরিচালক কার্যালয় সূত্র আরও জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় বিভাগের দুটি পিসিআর ল্যাবে ৩শ৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। রংপুরে ৩৭, দিনাজপুরে ১৫, গাইবান্ধায় ৭, কুড়িগ্রামে ৭, লালমনিরহাটে ৫, নীলফামারীতে ৪ এবং ঠাকুরগাঁও জেলায় ১ জন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। আট জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু দিনাজপুরে। এছাড়া সবচেয়ে কম আক্রান্ত পঞ্চগড়ে এবং মৃত্যু লালমনিরহাট জেলায়।বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আহাদ আলী জানান, মঙ্গলবার পর্যন্ত দিনাজপুুর জেলায় মোট আক্রান্ত ৫ হাজার ২শ৪৬ জন ও মৃত্যু হয়েছে ১শ১৯ জনের। রংপুর জেলায় ৪ হাজার ৫শ১৫ জন আক্রান্ত হবার বিপরীতে ৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। গাইবান্ধা জেলায় ১ হাজার ৬শ৬১ জন আক্রান্ত ও ২১ জনের মৃত্যু, ঠাকুরগাঁও জেলায় ১ হাজার ৬শ১৮ জন আক্রান্ত ও ৩৫ জনের মৃত্যু। নীলফামারী জেলায় ১ হাজার ৪শ৯৮ জন আক্রান্ত ও ৩৩ জনের মৃত্যু, কুড়িগ্রাম জেলায় ১ হাজার ১শ১৪ জন আক্রান্ত ও ১৭ জনের মৃত্যু। লালমনিরহাট জেলায় ১ হাজার ৩২ জন আক্রান্ত ও ১২ জনের মৃত্যু, পঞ্চগড় জেলায় ৮শ২২ জন আক্রান্ত এবং ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।সম্প্রতি সারাদেশের মধ্যে ৩১ জেলাকে করোনাভাইরাসের উচ্চ সংক্রমণ জেলা হিসেবে দেখানো হয়েছে। এর মধ্যে রংপুর ও নীলফামারী জেলা রয়েছে। যার মধ্যে রংপুরের অবস্থান ২৭ নম্বরে। এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানার পর রংপুরে সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। রংপুর সিটি করপোরেশন এলাকায় ১০ লাখেরও বেশি মানুষ বসবাস করলেও রংপুর মেডিকেল কলেজে স্থাপিত পিসিআর ল্যাবে প্রতিদিন মাত্র ৫০ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষা করার কোটা নির্ধারণ করে দেয়ায় শত শত নারী পুরুষ নমুনা পরীক্ষার জন্য ভিড় করলওে তাদরে নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে না। এতে তাদের চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছ।এ ব্যাপারে রংপুর সিটি করপোরশেনেরপ্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. কামরুজ্জামান তিনি তার অসহায়ত্বের কথা স্বীকার করে বলেন, রংপুর সিটি করপোরেশনের জন্য একটি আলাদা পিসিআর মেশিন দরকার। দশ লাখ মানুষরে জন্য ৫০ জনের কোটা নর্ধিারন করে দেবার কারণে বেশির ভাগ মানুষ নমুনা পরীক্ষার সুযোগ

পাচ্ছেনা। ফলে আমরা নমুনা সংগ্রহ করলওে ৫-৭ দিনের আগে রিপোর্ট পাওয়া যায়না ।তিনি বলেন ৩শোর বেশি নমুনা পরীক্ষার জন্য পিসিআর ল্যাবে পড়ে আছে ।রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলনে, নমুনা দেবার পর অনেক সময় লাগছে এটা মারাত্মতক ভীঢতির কারণ। আমরা বার বার বলছি এখানে আলাদা একটা পিসিআর মেশিন বসানো হোক তা না হলে করোনার সংক্রমণ এবার মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করনে তিনি । মেয়র বলেন ১০ লাখ মানুষের বাস সিটি করপোরেশন এলাকায় সেখানে মাত্র ৫০ জনের করোনা পরীক্ষার কোটা নির্ধারণ করা যুক্তিযুক্ত নয় সে কারণে দ্রæত আরো একটি পিসিআর মেশিন স্থাপন করার জন্য তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে দাবি জানান।

Previous articleটাঙ্গাইলে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির দায়ে ১১ জনকে কারাদণ্ড
Next articleকলাপাড়ায় ব্যবসায়ী ও ড্রাইভারকে অর্থদন্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।