জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে কৃষকের সম্পত্তি জবর দখলে নিয়ে সেখানে ঘেরের ভেড়ি বাঁধ নির্মান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কৃষক বাদী হয়ে ঐ ঘের মালিকের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানার ও ভুম অফিস বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছে। অভিযোগে সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ভালুকঘর গ্রামের মৃত মোজাহার আলী সরদারের ছেলে কৃষক বরকত আলী সরদার দত্তনগর জে.এল নং-১০ মৌজার ৮৬ আর.এস খতিয়ানের ৫৫৯ (এক দাগে) দাগের ৮৫ শতক সম্পত্তি ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে দীর্ঘদিন ধরে সেখানে ধান চাষের পাশাপাশি মাছ করে ভোগ দখল করে আসছে। পূর্ব হতে প্রতিবেশী মৃত মাষ্টার সামছুর রহমান মোড়লের ছেলে শফিকুল ইসলাম মুকুল ও টুকুল দুই ভাই তার এই সম্পত্তি জবর দখলে নেওয়ার চেষ্টাসহ তাকেসহ তার পরিবারের লোকদের বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি ও হয়রানীমূলক মামলা করার ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে আসছিল। মুকুল ও টুকুল এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় জীবনের নিরাপত্তার ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে সাহস পায়নি। জমি জমার বিরোধের জের ধরে গত ১৫ এপ্রিল সকালে প্রকাশ্যে ঐ দু’ভাই বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে তার উল্লেখিত জমি জবর দখলে নিয়ে সেখানে মৎস ঘেরের ভেঁড়ি বাঁধ নির্মানের কাজ করে। এসময় বাঁধা দিতে গেলে তারা তাকেসহ তার পরিবারের লোকজনদেরকে মারপিট ও খুন জখমের হুমকী দেয়। এঘটনায় কৃষক বরকত আলী সরদার বাদী হয়ে মুকুল ও টুকুলের বিরুদ্ধে ১৭ এপ্রিল কেশবপুর থানা ও ১৮ এপ্রিল উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভুমি) বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে।

এব্যাপারে শফিকুল ইসলাম মুকুল এই প্রতিনিধিকে জানান, বরকত আলীর জমি জবর দখলের অভিযোগ সম্পর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তিনি দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে পুকুরে মাছ চাষ করে আসছেন। পুকুরের পাড় ভেঙ্গে যাওয়ায় তিনি শুধুমাত্র ভাঙ্গা পাড়টির মেরামত করেছেন। এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জসিম উদ্দীন বলেন, অভিযোগ হাতে পেয়ে সেটি তদন্তের জন্য ভালুকঘর ফাঁড়ির ইনচার্জকে দায়িত্ব তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous articleভূঞাপুরে তরমুজের বাজারে সিন্ডিকেট, এক তরমুজের দাম ৭০০ টাকা!
Next articleপাঁচবিবিতে অবৈধভাবে বালু বহনের অভিযোগে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা ও দুইজনের ১৫ দিনের জেল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।