বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদী উপজেলায় সংস্কার না হওয়ায় ধীরে ধীরে ভরাট হয়ে যাচ্ছে গলইভাঙ্গা খাল। এক সময়ের উত্তরাঞ্চলের সাথে মুলাদী সদরের নৌ চলাচলের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম এ খালটি ভরাট হয়ে নৌ যোগাযোগ বিলুপ্ত হতে চলেছে। এছাড়া শুকনো মৌসুমে পানির অভাবে কয়েক হেক্টর জমিতে ফসল উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে এবং বর্ষা মৌসুমে একই জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। জানাগেছে মুলাদী বন্দরের সাথে চরকালেখান গলইভাঙ্গা বাজার, নমরহাট, বেপারীর হাট, সফিপুর, বাটামারাসহ উত্তরাঞ্চলের নৌ যোগাযোগের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে গলইভাঙ্গা খালটি ব্যবহৃত হতো। ইঞ্জিন চালিত নৌকা, সাধারণ নৌকাসহ বিভিন্ন নৌযান চলাচল করতো। উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নের তয়কা-টুমচর এলাকা থেকে মুলাদী সদরে আসতে প্রায় ৬ ঘন্টা সময় লাগে। গলইভাঙ্গা খাল সচল থাকাকালীন সময়ে সময় লাগতো ২ থেকে আড়াই ঘণ্টা। তাই শটকর্ট পথ হিসেবে ছোট ছোট নৌযান গুলো এই খালটি ব্যবহার করতো। ভরা বর্ষা মৌসুমে খালটিতে পানি থাকলেও শুকনো মৌসুমে সম্পূর্ণ শুকিয়ে যায়। ফলে কোনো প্রকার নৌযান চলাচল করতে পারেনা। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মাইনুল আহসান সবুজ জানান উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ এবং নদী পথে পণ্য পরিবহনের জন্য গলইভাঙ্গা খালটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু বিগত কয়েক বছরে খালটি পলি মাটিতে ভরাট হয়ে যাওয়ায় নৌযান চলাচল করতে পারছে না। খালে আগে যে গভীরতা ছিলো বর্তমানে তা অর্ধেক হয়ে গেছে। এভাবে ভরাট হতে থাকলে অচিরেই খালটি বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ফলে বর্ষা মৌসুমেও নৌযান চলাচল করতে পারবেনা। গলইভাঙ্গা এলাকার কৃষক জাফর আলী জানান খালে পর্যাপ্ত পানি না থাকার কারণে জমিতে ইরিধান চাষ করা সম্ভব হয়নি। পানের বরজ, রবিশষ্য চাষাবাদ ব্যহত হয়েছে। অবিলম্বে এখালটি খনন করা প্রয়োজন। কৃষক আব্দুর রহিম জানান কয়েক বার খালটি খনন করা হলেও বর্ষা মৌসুমে পলিমাটি এসে আবার ভরাট হয়ে যাচ্ছে। অধিকাংশ সময় বর্ষা মৌসুমে খালটি খনন করা হয়েছিলো। কিন্তু শুকনা মৌসুমে খালটি খনন করা হলে এভাবে ভরাট হয়ে পড়তো না। স্থানীয়রা অবিলম্ভে খালটি পুণঃখননের দাবী জানিয়েছেন।

Previous articleরংপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাত মাদকসেবীর কারাদণ্ড
Next articleকালকিনিতে ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে বৃদ্ধ বাবা নিহত, ছেলে আহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।