তাবারক হোসেন আজাদ: রায়পুর-পানপাড়া ৫ কিলোমিটার আঞ্চলিক মহাসড়ক। গত ১৫ বছর ধরে বেহাল। এতে গ্রামবাসী, পথচারি, পরিবহন চালক, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। ২০ মিনিটের এসড়কটি বিকল্প সড়ক দিয়ে পার হতে ৩০ মিনিট সময় লেগে যায়। অবশেষে সড়কটি গত এক বছর আগে ৭ কোটি ৫ লাখ টাকায় টেন্ডার হলেও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনায় সড়কটি সংস্কার না করায় কয়েকদিন কাজ করে আবার গত তিন মাস সড়ক বিভাগ ও ঠিকাদারের দন্ধে তা বন্ধ রয়েছে। সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় ধূলিকণার তীব্র ভোগান্তির শিকার জনগন।

গ্রামবাসী জানান, রায়পুর-পানপাড়া সড়ক দিয়ে রামগঞ্জ উপজেলার যোগাযোগের একমাত্র সহজ মাধ্যম ওই সড়ক। কিন্তু দীর্ঘদিন ধীরগ‌তির সংস্কার কার্যক্রম চলায় এই সড়কে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্তমানে ওই সড়কের যানবাহনগুলোকে প্রায় ২০ কি.মি. ঘুরে রায়পুর-রামগঞ্জ উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

এলজিইডি উপজেলা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) আওতাধীন এ সড়ক ১৫ বছর কাঁচা ছিল। আট বছর আগে এলজিইডি বিভাগ সড়কটির ছয় কিলোমিটার সংস্কার করেছে। সংস্কারের ৬মাস পরই সড়কের বিভিন্ন স্থানে পিচ ঢালাই উঠে গর্ত হয়ে যায়। গত ৪ বছর আগে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে সড়কের বিভিন্ন স্থান ভেঙে গিয়ে ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে সাত কিলোমিটার সড়কের তিন কিলোমিটার একেবারেই ভেঙে গেছে।

সড়কটিতে চলাচলকারি সিএনজি চালক আবদুর রহিম বলেন, সড়কের যে করুন অবস্থা, মনে হয় গাড়ি থামিয়ে কাঁদি। বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গিয়ে বড় বড় গর্ত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলে সিএনজি দূরের কথা পাঁয়ে হেঁটেও যাওয়া যায় না। ঠিকাদাররা যেন এই সড়কের কার্যক্রম তাদের পৈতৃক সম্পত্তি ভেবে ধুলোবালি দিয়ে এলাকায় রোগ ছড়িয়ে দিছেন। খালের একপাশে যাচ্ছেতাই কাজ করছেন বালু আর কনার সংমিশ্রণে। এসব কাজ এক নাগাড়ে দু’দিন বৃষ্টি হলে খালে ভেসে যাবে।

রায়পুর এলএম মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে সংস্কার না হওয়ায় এ সড়ক যান চলাচলের অনুপযোগীর পর যে কার্যক্রম শুরু করেছে ঠিকাদার। তাতে এ গুরুত্বপুর্ণ সড়ক কত বছর লাগবে ঠিক হতে আল্লাহ ভালো জানেন।

রায়পুরের কেরোয়া ইউপি চেয়ারম্যান রেখা আক্তার বলেন, ‘এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন দুই উপজেলার বিপুল সংখ্যক মানুষকে জেলা শহরে চলাচল করতে হয়। বর্তমানে সড়কের এমন অবস্থা যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচল করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। মানুষের দুর্ভোগের বিষয়টি ইউএনওসহ বিভিন্ন জায়গায় জানানোর পরও ধীরগ‌তির কাজের কোন সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। উল্টো এলজিইডি ও ঠিকাদারের গাফিলতির কারনে সড়কটির কাজই বন্ধ হয়ে গেছে।

মেসার্স তমা কনস্ট্রাকশনের কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, সড়কটি কাজ করার সময় এলজিইডির কর্মকর্তাদের গাফিলতির কারনে আমরা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি এক বছর যাবৎ। তারা যে স্টিমেট দিয়েছে, সেভাবে কাজ করলে সড়কটি টিকবে না বেশিদিন। আর সড়কটি না টিকলে আমাদের বিল না পাওয়ার সম্ভাবনা ও আর্থিক ভাবে ভবিষ্যতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলীকে অবহিত করলে তিনি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন। কিন্তু গত ৩ মাসেও সেই ঢাকা থেকে তদন্ত টিম আসার চিঠি অজানা কারনে পড়ে আছে। ফলে আমরা সঠিক দিক নির্দেশনা, স্টিমিট না পাওয়ায় কাজ করার কোন সুযোগ নেই।

এলজিইডির রায়পুরের সহকারী প্রকৌশলী মো.তাজুল ইসলাম বলেন, ‘সড়কটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। জাপার সাংসদ নোমান জরুরি ভিত্তিতে সড়কটি মেরামতের জন্য আরসিআইপি প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করে দরপত্রও আহ্বান করার ব্যবস্থা করেছিলেন। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স তমা এন্টারপ্রাইজ ওয়ার্ক অর্ডার পেয়ে কাজও শুরু করেছিলো। প্রায় ৬ কিঃমিঃ সড়কে ৭ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। তবে রাস্তাটির যে সংস্কার কার্যক্রম তাতে জনগনের ভোগান্তি প্রচন্ড বেড়েছে। ধুলোবালি এবং রাস্তার বেহাল অবস্থা করার অভিযোগ প্রতিনিয়ত অভিযোগ পাই। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে জরুরী ভিত্তিতে সড়ক সংস্কারের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ধীরগতির কাজের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, এই বিষয়ে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। তবে কবে নাগাদ এ রাস্তা চলাচলের উপযোগী হবে তা নিশ্চিত না। কাজ বন্ধ থাকার বিষয়ে ঠিকাদার ও প্রধান প্রকৌশলী অবগত আছেন। আমরা সুনির্দিষ্ট কিছু বলতে পারছি না।

এলজিইডির লক্ষ্মীপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: শাহআলম পাটোয়ারী যুগান্তরকে বলেন, রায়পুর – পানপাড়া সড়ক সংস্কার নিয়ে তদন্ত টিমের মেজারম্যান্ট হয়নি বলে জানান। পূনরায় স্টিমেট নিয়ে সড়কে কাজ করার নির্দেশনায় শুরু হবে।

উল্লেখ্য- গত বছরের ডিসেম্ভরে, Existing prevent এর পুরুত্ব বর্তমান পূর্নবাসনের জন্য প্রাক্কালানে অন্তর্ভুক্ত Base course এর পুরুত্ব এবং বিভিন্ন অংশে প্রতিরক্ষা ওয়ালের দৈর্ঘ্য অপ্রতুলতার বাস্তব চিত্র, অনুসন্ধান, অনুধাবন সহ স্থির চিত্র, ভিডিও পাঠিয়েছেন লক্ষ্মীপুরের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী এলজিইডির শাহআলম পাটোয়ারী অধিদপ্তরের RCIP এর প্রকল্প পরিচালককে দেয়া ০৮/১২/২০ এর সেই চিঠিতে অধিদপ্তরের উপদেষ্টা, দক্ষ প্রকৌশলী সমন্বয়ে একটি টিম জরুরী ভাবে পরিদর্শন করে পূর্নবাসন কাজ শুরু করার অনুরোধ করা হয়। তবে এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে একটি তদন্ত টিম প্রেরণ করার জন্য চিঠির এত মাস পার হয়ে গেলেও কোন কার্যক্রম চোখে পড়েনি, তারই ফলশ্রুতিতে রায়পুর -রামগঞ্জ সংস্কার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে রয়েছে।

Previous articleদুই মাদকসেবী মিলে খুন করে মিজানুরকে
Next articleরায়পুরে একই পরিবারের ৫ দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর কষ্ট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।