অতুল পাল: স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত জনস্বাস্থ্য পুষ্টি তথ্য বিভাগ থেকে বাউফলে কোভিট-১৯ মহামারিতে পুষ্টিযুক্ত খাদ্য সংকটে রয়েছে এমন ১৪০টি অসহায় ও দুস্থ্য পরিবারের মাঝে পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য বিতরণের তালিকায় বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একাধিক চিকিৎসক, ইন্সপেক্টর, করণিক এবং অফিস সহকারীর নাম রয়েছে। এঘটনা ফাঁস হওয়ার পর বিষয়টি এখন টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়েছে। জানা গেছে, কোভিট-১৯ মহামারির সময় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের জনস্বাস্থ্য পুষ্টি তথ্য বিভাগ থেকে পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য প্রকল্পের আওতায় বাউফলে পাঁচ সদস্যের ১৪০টি অসহায় ও দুস্থ্য পরিবারের জন্য সহায়তা হিসেবে ৯০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেন। এরপর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তাসহ অন্যান্য চিকিৎসক ও স্টাফরা মিলে ১৪০ টি পরিবারের নামের তালিকা প্রস্তুত করেন। তালিকার মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ডাঃ হীরা, ডাঃ নুপুর বেগম, ডা: আখতারুজ্জামান, অফিস সহায়ক সাইয়েদাতুননেছা এবং ইন্সপেক্টর সেলিমসহ ২৫ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়। অর্থ প্রাপ্তির পর পরিবার প্রতি ৫ কেজি চাউল, আধা কেজি মশুর ডাল, আধা লিটার সয়াবিন তেল, আধা কেজি ছোলার ডাল, ১ কেজি আয়োডিনযুক্ত লবন, ১ কেজি পিঁয়াজ এবং ৩ কেজি আলু কিনে ১৪০টি প্যাকেট করা হয় এবং ২৯ এপ্রিল থেকে ১ মে পর্যন্ত ওই প্যাকেটগুলো তালিকা অনুযায়ি বিতরণ করা হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও অন্যান্য স্টাফরা খাদ্য প্যাকেট নিয়েছেন এখবর বাহিরে ছড়িয়ে পড়লে নানাবিধ জল্পণা-কল্পণার সৃষ্টি হয়। অপরদিকে তালিকায় মো: শাকিল, মো: রুহুল ও কবিরসহ একাধিক ব্যাক্তির নাম ঠিকানা খুঁজে না পাওয়া গেলেও মাস্টার রোলে সহি স্বাক্ষর দিয়ে পুষ্টির প্যাকেজ নিয়েছেন এরকম চিত্রও ধরা পড়েছে। এদিকে নাজিরপুর ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রামের তুজম্বর ব্যাপারী নামের একজন অভিযোগ করেন, তালিকায় যে সকল মালামাল দেওয়া হয়েছে তার পরিমাণও কম ছিল। পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য সহায়তা নেওয়া ডা: নুপুর বেগমসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানান, তাদের বাসার পরিচারিকারা অসহায়, তাই তাদের জন্য পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য প্যাকেজ নেওয়া হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার এস.এম. সায়েম জানান, ডাক্তাররা কখনো এই প্যাকেট নিতে পারেন না। হয়তো তাদের বাসার পরিচারিকাদের জন্য নিয়েছেন। তালিকায় ডাক্তারদের নাম দেওয়া ভুল হয়েছে। এ বিষয়ে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা: প্রশান্ত কুমার সাহা (পিকে সাহা) জানান, এরকম হওয়ার কথা নয়। আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

Previous articleহেফাজত নেতা জাকারিয়া নোমান গ্রেফতার
Next articleসদ্য ঘোষিত যুবদলের ঈশ্বরদী পৌর কমিটি বাতিলের দাবী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।