আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় সড়ক নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও কৃষি জমি থেকে মাটি কেটে নেয়ার অভিযো উঠেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিডি)প্রায় সাড়ে ৬কোটি টাকা ব্যয়ে এই সড়ক মেরামতরে কাজ করছে। এ বিষয়ে এলজিইডি’র প্রধান প্রকৌশলী ঢাকা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার না পেয়ে কাজে অনিয়মের প্রতিবাদে ও সিডিউল মোতাবেক কাজ করার দাবী নিয়ে ওই সড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন এলাকাবাসী। অভিযোগে জানা যায়, বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সেকেন্ড রুরাল ট্রান্সপোর্ট ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট (আরটি আইপি) প্রকল্প-২ এর অধীনে প্রায় ৬কোটি ২৬লক্ষ ৩৭হাজার টাকা ব্যয়ে সাঁথিয়ার নন্দনপুর ইউনিয়নের জোড়গাছা আরএন্ডএইচ সেলন্দা জিসি ভায়া ধোপাদহ ইউনিয়নের হাপানিয়া, গোপালপুর সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন ও মনসুর আলমের বাড়ি হয়ে হলুদঘর ও খিদিরগ্রামে সাড়ে ৯ কিঃমিঃ সড়ক মেরামতের কাজ পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স জিন্নাত আলী জিন্নাহ লিঃ। বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী অভিযোগ করেন শিডিউলের তোয়াক্কা না করে ইচ্ছেমত কাজ করেেছ ঠিকাদার। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে তাদেরকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তারা অভিযোগ করে বলেন, সড়ক নির্মাণ এলাকায় স্ট্যাকইয়ার্ড করে বালি খোয়ার মিশ্রণ করার কথা থাকলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সোলিংয়ে ইট খোয়ার পরিবর্তে রাতের আধারে ট্রাকে করে ব্যবহার করছে পোড়া মাটি। মানা হচ্ছেনা রাস্তা প্রশস্ত ও পুরুত্বের নির্ধারিত মাপ। সড়ক বাঁধাইয়ে নি¤œমানের ব্লক ব্যবহার করায় তা বসানোর আগেই ভেঙে যাচ্ছে। সামান্য বৃষ্টিতেই মাটি ধুয়ে যাচ্ছে। চকমধুপুর

গ্রামের কলেজ শিক্ষক আলাউদ্দিন বলেন, রাস্তা সংস্কারের শুরু থেকেই ঠিকাদার গায়ের জোরে ইচ্ছেমত নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করছে।শিডিউলে রাস্তা এইজিংয়ে ৫ফুট ৬ইঞ্চি করার কথা থাকলেও তা করা হচ্ছেনা। পুরুত্বে ৪ইঞ্চির স্থলে ২-৩ইঞ্চি করা হচ্ছে। ইট খোয়ার পরিবর্তে রাতের আধারে পোড়ামাটি দিয়ে রোলার করে দিচ্ছে। আইনজীবী শামসুল হক অভিযোগ করেন,ঠিকাদার সিডিউল অনুযায়ী বাইেের থেেেক ট্রাকে করে মাটি কিনে না এনে ভয় দেখিয়ে গ্রামের কৃষকদের জমি ও রাস্তার পাশের খাল থেকে ভেকু দিয়ে মাটি কেটে নিচ্ছে। এতে কৃষকের ক্ষতির পাশাপাশি যে কোন মুহূর্তে সড়ক ধসে পড়ার আশংকা তৈরী হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে যোগসাজসে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সংস্কার কাজের নামে লুটপাটের খেলায় মেতেছে। যেভাবে সড়ক সংস্কার হচ্ছে তাতে আগামী বর্ষায় এ সড়ক তো টিকবেই না বরং বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে। কৃষক আব্দুল লতিফ বলেন, ঠিকাদারের লোকজন জোর করে আমার জমি থেকে মাটি কেেেট নিচ্ছে। আমি বাধা দিলে বলেছে, সরকারি কাজে বাধা দিলে জেলের ভাত খাওয়ানো হবে। তারা ইচ্ছেমত আমার জমি নষ্ট করেছে। জানা গেছে,অস্থায়ী ক্যাম্প, টয়লেট পুরুষ-মহিলা ও ধুলা প্রতিকারের জন্য ব্যয় ধরা থাকলেও সংশ্লিষ্ট এলাকায় কোনটাই করা হয়নি। ফলে এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী ফুঁসে উঠেছে। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী গত ৭এপ্রিল স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের প্রধান প্রকৌশলী ঢাকা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগ দেয়ার পর একমাসের অধিক সময় পেরিয়ে গেলেও কোন প্রতিকার নেই। ঠিকাদার সেই আগের মত অনিয়ম করেই মেরামত কাজ অব্যাহত রেখেছে বলে তাদের দাবি। সুত্র জানায়, প্রভাবশালী ঠিকাদার সিডিউল মত কাজ না করায় ওই কাজ দেখার দায়িত্বপ্রাপ্ত সাঁথিয়া প্রকৌশল অধিদপ্তরের একজন উপসহকারী প্রকৌশলী দায়িত্ব থেকে অব্যহতি চেয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন দিয়েছেন। এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী পাবনা মকলেছুর রহমান জানান, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সিডিউল মোতাবেক কাজ করার জন্য ঠিকাদারকে বারবার তাগাদা দেয়া হচ্ছে। সাঁথিয়া উপজেলা প্রকৌশলী(অতি: দায়িত্ব) আবুল হাসেম বলেন, কাজে

কিছু অনিয়ম দেখা যাওযায় সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ঠিকাদারকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্তাধীকারী মোহাম্মদ জিন্নাত আলী জিন্নাহ অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সিডিউল মেনেই কাজ করা হচ্ছে.

Previous articleপাবনার ফরিদপুরে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলের হামলার প্রতিবাদে সাঁথিয়ায় বিক্ষোভ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।