ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছা উপজেলা সদর হয়ে তাম্বুলপুর ইউনিয়নের নেকমামুদ বাজার হতে তাম্বুলপুর বাজার পর্যন্ত পাকা রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। যার কারণে দূর্ভোগে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ। দীর্ঘদিন থেকে পাকা রাস্তাটি মেরামত না করায় কার্পেটিং(পিচ) উঠে গিয়ে বর্তমানে রাস্তাটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। রাস্তার কয়েক জায়গা দেবে গিয়েছে। স্থনীয় সুত্রে জানা যায়, এই রাস্তাটি দিয়ে তাম্বুলপুর ইউনিয়নের কয়েকটি মৌজার লোকজনসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলা উলিপুর ও সুন্দরগঞ্জ তারাপুর ইউনিয়নের প্রায় লক্ষাধিক লোক যাতায়াত করে থাকেন। দীর্ঘ দুই বছরের অধিক সময় থেকে রাস্তাটির বেহাল দশা হলেও রাস্তাটি মেরামতে নেয়া হয়নি কোন উদ্যোগ। রাস্তার বেহাল দশার কারণে সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ীরা। চরাঞ্চলের কৃষি জমি থেকে উৎপাদিত ফসল পরিবহনে গাড়ি ভাড়া বেশি দিতে হচ্ছে। এতে ব্যবসায়িদের চেয়ে কৃষকরা বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এছাড়া অনেক সময় মালবাহী গাড়ি দেবে যাওয়া রাস্তায় আটকিয়ে পড়ায় যাতায়তে বিঘœ ঘটে। তাম্বুলপুর বাজারের বিশিষ্ট ধান ব্যবসায়ী মোরশেদুল ইসলাম বলেন, তাম্বুলপুর থেকে তারাবাজার পর্যন্ত রাস্তাটির বেহাল দশার কারণে চলাচলে আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ১০ মিনিটের রাস্তা যেতে ২০/৩০ মিনিট পর্যন্ত সময় লাগে। যাত্রাপথে অনেক সময় রিকসা, অটোভ্যান ও চার্জার অটোর যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে ঘটছে দূর্ঘটনা। চলাচলকারী মানুষের দূর্ভোগের কথা চিন্তা করে রাস্তাটি মেরামত করা প্রয়োজন। নেকমামুদ বাজারের রিকসা চালক আলম মিয়া বলেন, তাম্বুলপুর বাজার যাওয়ার রাস্তাটির বেহাল দশার কারণে রিকশা চালিয়ে শান্তি পাইনা। সময়ও বেশি লাগে। রাস্তার খারাপের কারণে লোকজন রিকসা-ভ্যানে না উঠে হেঁটে যেতেই স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন। তাই আমাদের আয় রোজগার অনেকটা কমে গেছে। দ্রুত রাস্তাটি মেরামত করা প্রয়োজন। উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, রাস্তাটি ঠিকাদার মেরামত করে দিবেন।

Previous articleইসরায়েলের বিষয়ে বঙ্গবন্ধুর নীতির একচুলও পরিবর্তন হয়নি: তথ্যমন্ত্রী
Next articleশাহজাদপুরে মুক্তিযুদ্ধকালিন অধিনায়ক মির্জা আব্দুল বাকী’র মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।