এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌরশহরের খাস জমি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে একদল প্রভাবশালীরা প্রকাশ্য দিবালোকে স্থাপনা তুলছেন। স্থানীয় প্রশাসনের চোখের সামনে এ স্থাপনাগুলো তোলা হচ্ছে তারা কোনো অ্যাকশনে যাচ্ছে না। তারা বলছে আমরা নোটিশ করেছি উচ্ছেদের জন্য।ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালীরা এর সাথে জড়িত থাকার কারণে প্রশাসনের কর্তারা কিছুই করতে পারছে না। এভাবে প্রভাবশালীদের খাস জমি দখলের প্রবনতা বারায় হাত ছাড়া হচ্ছে কোটি কোটি টাকার সরকারী জমি।দখল দৌরাত্ম্য যারা জড়িত তারা কেউ চুনাপুটি নয়, তাই তাদের টিকিটিও ছুঁতে পারে না স্থানীয় প্রশাসন।

কলাপাড়া পৌরশহরের বড় কলবাড়ী এলাকা থেকে ফেরীঘাট চৌরাস্তা, লঞ্চঘাট, বাদুরতলি হয়ে বালিয়াতলি খেয়াঘাট পর্যন্ত পাউবোর কয়েক কিলোমিটার ওয়াপদা সড়কের দু’পাশে আধা পাকা কিংবা পাকা স্থাপনা তুলে প্রভাবশালীদের দখল থেকে অদ্যবধি কোন সরকারী জমি উদ্ধার করতে পারেনি পাউবো কর্তৃপক্ষ। শত কোটি টাকার এ সম্পত্তিতে প্রভাবশালীরা স্থাপনা তুলে লক্ষ লক্ষ টাকা অগ্রিম ও মাসিক হাজার হাজার টাকা ভাড়া পেলেও সিকি আধুলিও রাজস্ব পাচ্ছে না সরকার এ থেকে। বছর কয়েক আগে পাউবো কতৃপক্ষ অবৈধ স্থাপনা অপসারন দখলদারদের উচ্ছেদ নোটিশ দিলেও তাও এগায়নি বেশীদূর। এছাড়া শৌহরের অভ্যন্তরে প্রভাবিত সরকারী খালের দু’পাড়ে প্রভাবশালীদের অবৈধ স্থাপনা দৃশ্যমান থাকলে ও তা চোখে পড়ছেনা স্থানীয় প্রশাসনের।তবে উচ্ছেদ অভিযায় পরিচালনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট নিযুক্ত না করার কথা দীর্ঘদিন ধরে বলছে পৌর প্রশাসন। চিংগড়িয়া খালের দু’পাড়ের অবৈধ দখল উচ্ছেদ পরিবেশবাদী সংগঠন বেলা উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন দাখিল করার পরে স্থানীয় ভূমি প্রশাসন নোটিশ ইস্যু করে দখলদারদের বিরুদ্ধে । এরপর এক প্রভাবশালী কলাপাড়া সিনিয়র সহকারী জজ আদালত প্রশাসনকে বিবাদী কর মামলা করায় আর এগায়নি এটিও। দীর্ঘবছর ধরে মামলাটি ঝুলে আছে, অদ্যবধি নিস্পত্তি হয়নি। রাষ্ট্রর সকল ভাতাদি ভোগ করার পরেও রাষ্ট্ররে পক্ষ রহস্যজনক ভাবে কথা বলছেনা সরকারী কৌশলী । লঞ্চঘাট সংলগ্ন আন্ধারমানিক নদীর পাড়ে বেদখল হয়ে ভবন উত্তোলনের পর দখলদারদের নোটিশ ইস্যু করেও কিছু করতে পারিনি ভূমি প্রশাসন, উচ আদালতের আদেশ দখলদারদের পক্ষে থাকায়।

এদিকে কলাপাড়া ফেরীঘাট এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে নদী পাড় পর্যন্ত বিস্তত এলাকার সরকারী খাসজমি দখল করে গত ক’দিন ধরে বেশ ক’টি স্থাপনা তুলছে ক’জন প্রভাবশালী।স্থাপনার চিত্র ধারণ করতে গেলে তাদের বক্তব্য, কি হবে ফালতু ঘর নির্মানের ছবি তুলে ও লিখে, সব ম্যানজ। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সাথে কথা বলে শেনা যায়, তারা এ বিষয় অবগত নন। কেউ তাদের জানায়নি।

পরিবশবাদী সংগঠন বেলার স্থানীয় নেট মেম্বর ও কলাপাড়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মেজবাহ উদ্দীন মাননু বলেন, ’নদী, খাল দখলদার উচ্ছেদ করতে হবে। এটি আমরা বলে আসছি এবং এখনও এ দাবী জানাছি। নতুবা নদী কেন্দ্রিক আমাদের যা সভ্যতা রয়েছে তা হারিয়ে যাবে।

কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র বিপুল চদ্র হাওলাদার বলেন, পৌরশহরের অভ্যন্তর প্রবাহিত খালের দু’পাড়ে দখল মুক্ত করার বিষয়টি আমার নির্বাচনী প্রচারনার অঙ্গীকার ছিল। যে কোন মূল্যই খাল দখলদার মুক্ত করা হবে। তাতে যত বাধাই আসুক। পাউবো’র উপ-বিভাগীয় প্রকাশনী শওকত ইকবাল মহরাজ প্রধান প্রকাশলী’র সাথে স্পীড বোডে বেরিবাধ পরিদর্শনে আছেন বলে এ নিয় কোন বক্তব্য দেননি।কলাপাড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডল বলেন,ভূমি প্রশাসন ও পাউবো থেকে যেসব দখলদারদের অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে ইতিপূর্বে নোটিশ করা হয়েছে তাদের তালিকা করা হয়েছে। যা ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে উচ্ছেদ পরিচালনায় কেস নথি হিসবে তরী করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে উচ্ছেদ পরিচালনায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট নিযুক্ত হলেই উচ্ছেদ অভিযান শুরু হবে। পর্যায়ক্রম সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

Previous articleবাউফলে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অধিদপ্তরের মহা পরিচালকসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা!
Next articleসাঁথিয়ায় আ’লীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম, আটক ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।