জয়নাল আবেদীন: রংপু্রের পীরগাছা উপজেলার পাঁচ শতাধিক কৃষকের সবজি বীজ উৎপাদন করে ভাগ্য বদলেছে । ক‘বছর আগেও যারা অভাব-অনটনে দিনাতিপাত করতেন, তারাই আজ গ্রীষ্মকালীন আবাদ করে অর্থনৈতিকভাবে ভাগ্যের পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছেন। অধিক লাভের আশায় প্রতিবছর অন্য ফসল আবাদ ছেড়ে বীজ আবাদের দিকে ঝুঁকছেন স্থানীয় অনেক কৃষক।উপজেলার পারুল ইউনিয়নের ছিদাম এলাকাসহ আশপাশের এলাকা ঘুরে দেখা গেছে দিগন্তজুড়ে সবজির মাঠ। এসব মাঠে বাঁশের মাচা করে করলা, ঝিংগা, চিচিঙ্গা, লাউ, বরবটি আর মিষ্টি কুমড়ারসহ আরও কয়েক প্রকার সবজি চাষ করছেন ওই এলাকার অধিকাংশ কৃষক। আর এই ভরা মৌসুমে প্রচÐ রোদেও ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। চৈত্র মাসে ক্ষেত থেকে আলু তোলার পরপরই জমি প্রস্তুত করে সারিবদ্ধভাবে রোপণ করা হয় এসব ফসল ও সবজির বীজ। এরপর শুরু হয় দুই থেকে আড়াই ফুট উঁচু মাচা করার কাজ। কৃষি বিভাগ ও বিএডিসির পরিমর্শ এবং কৃষকের নিবিড় পরিচর্যায় সবজিগুলো থেকে বীজ বের করে নেন কৃষক।রোদ-বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে কেউবা আরও অধিক লাভের আশায় কঠিন পরিশ্রমে এসব ফসলের হাইব্রিড জাতের বীজ উৎপাদনে কাজ করে যাচ্ছেন । এলাকা ঘুরে কথা হয় বিএডিসির একজন সফল বীজ উৎপাদন চাষি মনতাজুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জানান, গত ১৩ বছর ধরে বীজ উৎপাদন করে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়েছেন। এবারও তিনি এক একর হাইব্রিড মিষ্টি কুমড়া, তিন একর লাউ আর দেড় একর করলার বীজ উৎপাদন করেছেন। মিষ্টি কুমড়া একরে ৫০-৫৫ কেজি উৎপাদনের সম্ভাবনার কথা জানান তিনি, যার ক্রয় মূল্য প্রতি কেজি ৮-১০ হাজার টাকা দরে প্রায় পাঁচ লাখেরও বেশি টাকা। এছাড়াও করলা আর লাউয়ে একর প্রতি দেড় লাখ টাকা করে লাভের স্বপ্নও দেখছেন কৃষক ।লাউ বীজ চাষি জিয়া । তিনি নিজের ৬০ শতাংশ জমিতে লাউ চাষ করে পরিপক্কতায় বীজ ও সংরক্ষণ করেছেন। এখন শুকিয়ে সেই বীজগুলো কোম্পানিতে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করছেন। বীজ প্রস্তুতকালে জিয়া জানান, এবার এই জমিতে প্রায় ৩শ কেজি বীজ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ৮শ টাকা কোম্পানির ধরে এক লাখ ৮০ হাজার টাকা পাওয়ার স্বপ্ন তাঁর। খরচ হয়েছে মাত্র ৩০ হাজার টাকা। জানা যায়, এসব চাষিকে বিএডিসির পাশাপাশি লালতীর, সুপ্রিম সিড, মেটাল, এসিআই, ম্যাকডোনাল্টসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ভিত্তি বীজ দিয়ে তাদের ফিল্ড সুপারভাইজার ভাইজার দ্বারা কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে থাকেন। পরবর্তী সময়ে উৎপাদিত বীজগুলোর গুণগত মান নির্ণয় করে কোম্পানি ক্রয় করে নেন। কেনা বীজের মূল্য শর্তসাপেক্ষে জমাদানের ছয় মাসের মধ্যে কৃষককে পরিশোধ করে কোম্পানি বা ওই প্রতিষ্ঠান। পীরগাছা উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. সামসুজ্জামান জানান উপজেলার পারুল ইউনিয়নের নাগদাহ, শরিফ সুন্দর, কিং সেচাকান্দি এলাকাসহ উপজেলায় পাঁচ শতাধিক কৃষক এই বীজ উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত। এবছর উপজেলায় প্রায় ৫০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের সবজি বীজ চাষ করা হয়েছে। বীজ উৎপাদনে অধিক লাভ হওয়ায় প্রতিবছর বীজ চাষে কৃষকের সংখ্যা বাড়ছে। এসব চাষিকে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সার্বক্ষণিক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি। বিএডিসির কৃষক সমন্বয়ক কৃষিবিদ নুপুর আক্তার বলেন হাইব্রিডসহ উন্নত জাতের সবজি বীজ উৎপাদনের জন্য কৃষকদের সার্বক্ষণিক পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও মাঠ পর্যায়ে গিয়ে আমাদের ফিল্ড অফিসাররা দেখাশোনা করছেন। অধিক ফলন ও লাভ বেশি হওয়ায় কৃষকরা বীজ উৎপাদনে অনেক উৎসাহী হচ্ছে। রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান বলেন উচ্চ ফলনশীল জাতের সবজি বীজ উৎপাদন ভবিষ্যতে ভালো ফলনের সহায়ক। কৃষকরা এই বীজ উৎপাদন করে একদিকে লাভবান হচ্ছেন যেমন, অন্যদিকে বাজার বা দেশে ভালো মানের বীজেরও নিশ্চয়তা বাড়ছে।তিনি আরও বলেন, ‘দিন দিন রংপ্রু জেলায় সবজি চাষাবাদ বাড়ছে। সেইসঙ্গে সবজি বীজ উৎপাদনকারী কৃষকের সংখ্যাও বাড়ছে। এসব কৃষকের তালিকা করে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে চাষে পোকামাকড় থেকে শুরু করে অন্যান্য ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

Previous articleমিলের বর্জ ও বিষাক্ত ছাইয়ে পরিবেশ বিপন্ন হওয়ার প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে বিক্ষোভ
Next articleবেরোবি ভিসির শাস্তি ও দুর্নীতির সহযোগীদের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।