জয়নাল আবেদীন: আগামী ২০ জুন থেকে রংপুরের সুস্বাদু হাড়ি ভাঙ্গা আম বাজারে বিক্রি শুরু হবে। এ বছর প্রায় আড়াই হাজার হেক্টর জমিতে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ করা হয়েছে। শত কোটি টাকা বাজারজাতের আশা করছেন আম চাষীরা । আম চাষিরা জানিয়েছেন, এবার ফলরও ভালো হয়েছে। নতুন অবস্থায় প্রতি কেজি আম ৬০ থেকে ৮০ টাকা দরে বিক্রি করতে পারবেন। যার বাজার মূল্য শত কোটি টাকার উপরে।

হাড়িভাঙ্গা আম বাজারজাতের লক্ষ্যে সোমবার বিকেলে রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার খোঁড়াগাছ ইউনিয়নের পদাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আম চাষী, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আম পরিবহনের জন্য বিশেষ বাস সার্ভিস চালুর দাবি জানিয়ে আম চাষীরা বলেছেন, আমের ন্যায্য দাম নিশ্চিতকরণে প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে হবে। এছাড়াও পদাগঞ্জ হাটের সড়কের সংস্কার, হাটে ব্যাংকিং সুবিধা নিশ্চিত করাসহ পাবলিক টয়লেট স্থাপন ও পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। আম ব্যবসায়ী ও চাষীরা অভিযোগ করে বলেন, হাঁড়িভাঙ্গা আমের বাজার সম্প্রসারণ হলেও পদাগঞ্জ এবং রংপুর নগরীতে আম বিক্রির কোন শেড নেই। ব্যবসায়ীরা সড়কের ধারে ফেরি করে কাদামাটি মাড়িয়ে আম বিক্রি করে। তারা আমের বাজার স¤প্রসারণ ও চাষাবাদ বাড়ানোর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান। মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মান্নান ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন, রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। বক্তব্য দেন, মিঠাপুকুর উপজেলা চেয়ারম্যান জাকির হোসেন সরকার, কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর উপ-পরিচালক ওবায়দুর রহমান, কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আনোয়ারুল হক প্রমুখ। মতবিনিময় সভায় হাঁড়িভাঙ্গা আমের সম্প্রসারক ও চাষী আব্দুস সালাম সরকার বলেন, হাঁড়ি ভাঙ্গার বাজারখ্যাত পদাগঞ্জের সড়কের করুণ অবস্থা। বিশেষ করে কদমতলী থেকে নাগেরহাট পর্যন্ত সড়ক একেবারে চলাচল অনুপযোগী। আমের বাজার নিশ্চিত করতে পদাগঞ্জে ব্যাংকের শাখা স্থাপন, হাটে পাবলিক টয়লেট স্থাপন, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ব্যবসায়ীদের জন্য আবাসন সুবিধার ব্যবস্থা এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। সভায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের আদলে আম পরিবহনের জন্য ম্যাংগো ট্রেনের মত রংপুর থেকে বিআরটিসি সার্ভিসের মাধ্যমে ম্যাঙ্গো বাস সার্ভিস চালুর দাবি জানানো হয়। জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, এবার রংপুর মহানগরীর লালবাগ এলাকায় আগামী ২০ জুন থেকে সরাসরি কৃষকের আম বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ওইদিনই “সদয় অ্যাপস” নামে একটি হাঁড়িভাঙ্গা আম বিক্রি অ্যাপস চালু করা হবে বলে তিনি জানান ।

রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানান এবার রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার আখিরাহাট, পদগঞ্জ, মাঠেরহাট, বদরগঞ্জ উপজেলার গোপালপুরসহ বেশি কিছু এলাকায় ৩ হাজার ৩শ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের আমের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে শুধু মিঠাপুকুর ও বদরগঞ্জ উপজেলায় ২ হাজার ৫ শত হেক্টর জমিতে হাঁড়িভাঙ্গা আমের বাগান রয়েছে। রংপুর জেলায় এবার আমের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৮৩৫ মেট্রিক টন। এর মধ্যে হাঁড়িভাঙ্গা আমের উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৭ হাজার ৯ শত ২৫ মেট্রিক টন। জেলার মধ্যে বদরগঞ্জ উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ৪০০ হেক্টর জমিতে আম চাষ করা হয়েছে। এছাড়াও রংপুর মহানগর এলাকায় ২৫ হেক্টর, সদর উপজেলায় ৬০ হেক্টর, কাউনিয়ায় ১০ হেক্টর, গঙ্গাচড়ায় ৩৫ হেক্টর, মিঠাপুকুরে ১ হাজার ২ শত ৫০ হেক্টর, পীরগঞ্জে ৫০ হেক্টর, পীরগাছায় ৫ হেক্টর ও তারাগঞ্জ উপজেলায় ১৫ হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে।

Previous articleভূঞাপুরে বিয়ের দাবিতে ২ সন্তানের জনকের বাড়িতে এক সন্তানের জননী
Next articleচান্দিনায় ৪শ পিস ইয়াবা ও ২কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।