আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের রায়ের বাশালিয়া গ্রামের এক সন্তানের জননী শিউলি বেগম (৩০) বিয়ের দাবিতে দুই সন্তানের জনকের বাড়িতে উঠেছেন। সোমবার (৭ জুন) উপজেলার রায়ের বাশালিয়া গ্রামের মৃত লিয়াকত হোসেন (পর্বত) এর ছেলে প্রেমিক হান্নানের বাড়িতে একই গ্রামের মৃত এবাদত খা’র মেয়ে কথিত প্রেমিকা শিউলি (৩০) বেগম অবস্থান নেয়। পরে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যেতে বললে প্রেমিকা শিউলি বিয়ের দাবিতে অনড় অবস্থান নেয়। ঘটনাটি জানাজানি হলে বাড়িতে আশেপাশের শত শত লোকজন একনজর দেখার জন্য ভীড় জমায়। লোকজন দেখে কথিত প্রেমিক হারুন দুই সন্তান রেখে স্ত্রীকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। তারপর কথিত প্রেমিকা প্রেমিকের বাড়ীতে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার হুমকি দেয়। জানা যায়, হান্নান রায়ের বাশালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী- কামপ্রহরী পদে চাকরি করেন। এলাকাবাসী জানান, হান্নান এর আগেও এক বিধবা নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপন করার সময় হাতেনাতে ধরা পড়লে গণপিটুনির শিকার হয়। তার পরও সে বারবার একই অপকর্ম করেই চলছে। প্রেমিকা শিউলি বেগম বলেন, নয় বছর পূর্বে আমার স্বামীর সাথে ডিভোর্স হয়েছে। আমার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে, আমার বাবা ভাই কেউ বেঁচে নেই। অনেক কষ্ট করে চলছি। কিন্তু হান্নান চার বছর ধরে আমাকে বিরক্ত করে আসছিলো। গ্রামে বের হতে পারি না, লোকজন দেখলেই আমাকে দেখে হান্নানের নাম নিয়ে টিস করে। বাধ্য হয়ে আমাকে হান্নানের বাড়িতে উঠতে হয়েছে। বিয়ের চাপ দিলে হান্নান বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় তার বাড়ীতে অবস্থান নিয়েছি। রায়ের বাশালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাসেল পারভেজ বলেন, আমি আজই কিছুটা শুনেছি, বিস্তারিত জেনে তার ব্যবস্থা নেব। ইউপি সদস্য হিটলার জানান, বিষয়টা শুনেছি, কেউ আমার কাছে আসেনি। তবে হান্নান অনেক খারাপ ছেলে, চরিত্র বলতে কিছুই নেই, এর আগেও এ ধরনের অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে। ওর বিচার হওয়া দরকার।

Previous articleবাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জেনারেটর ৬ বছর ধরে বিকল, প্রসূতি সেবা বিভাগ অচল
Next article২০ জুন বাজারে আসছে রংপুরে শতকোটি কোটি টাকার হাড়িভাঙ্গা আম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।