বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদী ফসলি জমির মধ্য দিয়ে জোড়পূর্বক রাস্তা নির্মাণকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। উপজেলার চরকালেখান ইউনিয়নের চরকালেখান গ্রামের সিদ্দিক বেপারীর বাড়ি থেকে নোমোকান্দি পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণকে ঘিরে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। দুই পাশে পাকা রাস্তা থাকায় জমির মালিকরা রাস্তা নির্মাণ প্রতিহতের ঘোষণা দেয়। অপরদিকে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও রাস্তার সুবিধাভোগীরা যেকোনো মূল্যে রাস্তা নির্মাণের কথা জানালে উত্তেজনা দেখা দেয়। চরকালেখান নোমোকান্দি এলাকার নির্মল ঘরামী জানান, তাঁদের জমির দুই পাশে পিচ ঢালাই সড়ক রয়েছে। এর পরও শুধুমাত্র একটি বাড়ির জন্য ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফসলি জমির মধ্য দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করছেন। ওই রাস্তা নির্মিত হলে দের’শ একর জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। তাই জমির মালিকরা একজোট হয়েছে। যেকোনে মূল্যে রাস্তা নির্মাণ বন্ধের ব্যবস্থা করা হবে। নরেন ঘরামী জানান, ফসলি জমি রক্ষার জন্য রাস্তা নির্মাণ বন্ধের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন জানিয়েছি। কিন্তু তারপরও তারা রাস্তা নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

চরকালেখান ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাজ্বী মো. মোহসীন উদ্দীন খান জানান, সাধারণ মানুষের স্বার্থেই পরিষদ থেকে বরাদ্দ দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে। সেখানে জমির মালিকদের আপত্তি থাকলে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেওয়া হবে। এখন পর্যন্ত যে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে সেখানে কেউ বাঁধা দিতে আসেনি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর মোহাম্মাদ হোসাইনী জানান, জমির মালিকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ফসলি জমির মধ্য দিয়ে রাস্তা নির্মাণ বন্ধের জন্য ইউনিয়ন চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Previous articleটাঙ্গুয়ার হাওরে মেছোবাঘ হত্যার পর উল্লাস, ভিডিও ভাইরাল
Next articleঈশ্বরদীতে লাইফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান ও জরিমানা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।