গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদ ও উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দের ছবি (ইনসেটে)

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে জন্ম ও মৃত্যু সনদ তুলতে সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়াও অতিরিক্ত কয়েকগুণ টাকা হাতিয়ে নেয়াসহ নানা ধরণের অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দ ওরফে শরীফের বিরুদ্ধে। তার এমন কর্মকা-ের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে সেবাগ্রহীতাদের নানা ভাবে হয়রানিও করেন বলে জানান ভুক্তভোগিরা। জন্ম সনদে অতিরিক্ত অর্থ নেওয়ার অভিযোগ ছাড়াও মৃত্যু সনদ তুলতেও নেন ৭০০ টাকা। এনিয়ে সেবাগ্রহীতা ও স্থানীয়রা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দের বিরুদ্ধে।

চাকরির শুরু থেকেই তার বিরুদ্ধে রয়েছে অভিযোগের পাহাড়। তাদের মধ্য একজন খানুরবাড়ী গ্রামের অসুস্থ সুমি খাতুন। গত ৩১ মে সকালে তিনি তার শ্বশুড়ের জন্য আসছিলেন মৃত্যু সনদ নেওয়ার জন্য। মৃত্যু সনদের জন্য তার থেকে সবুজ ৭০০ টাকা হাতিয়ে নেন। সুমি খাতুন অভিযোগ করে বলেন- গত কয়েক সপ্তাহ আগে পরিষদের সবুজের কাছে আমার শ্বশুড়ের মৃত্যু সনদ ওঠানোর জন্য এসে ছিলাম। দীর্ঘ সময় বারান্দায় দাঁড় করিয়ে রাখার পর তিনি আমার কাছে টাকা দাবি করেন। পরে টাকা না দিলে মৃত্যু সনদ হবে না বলে জানান। বাধ্য হয়ে ৭০০ টাকা দিয়েই সনদ নিতে হয়েছে। তিনি আরও বলেন- তার দেয়া তারিখ মতে কয়েকদিন পরিষদে এসে একাধিবার ফেরত গেছি। মৃত্যু সনদ চাইলে নানা অজুহাতে বার বার ফেরত দিয়েছেন তিনি। এরপর আবার গত ৩১ মে আসলে সেদিনও নানা তালবাহানা করেন সনদ দিতে। একপর্যায়ে তর্কবিতর্ক হলে স্থানীয় এক লোকের সহযোগিতায় আমার শ্বশুড়ের মৃত্যু সনদ দেন তিনি। শুধু সুমি খাতুন নয়, তার মতো আরেক ভুক্তভোগি নয়া মিয়া। তার স্ত্রী ও মেয়ে নিয়ে পরিষদে জন্ম সনদ ওঠাতে আসেন। সুমির মতো তাকেও কয়েক সপ্তাহ ঘুরিয়েছে উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দ। এ বিষয়ে নয়া মিয়া বলেন- গেল সপ্তাহে তিনি সরকারি নির্দেশনা মতে সকল কাগজপত্র সবুজের কাছে দিয়ে আসি। সে সময় তিনি আমার, স্ত্রী ও মেয়ের সনদের জন্য ১ হাজার ১৫০ টাকা দাবি করেন। এরপর ১৫০ টাকা জমা দিয়ে আসলে সুবজ আমাদেরকে বলেন বাকি ১ হাজার টাকা সনদ নেয়ার সময় জমা দিয়ে নিয়ে যাবেন। পরে তার কথা অনুয়ায়ী গত ৩১ মে সকালে পরিষদে সনদ চাইলে তিনি সনদ দেননি। তার দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় নানা ধরণের অজুহাত দেখায় সে। পরে হয়রানির স্বীকার হয়ে বাড়ি চলে যাই। এসব বিষয়ে স্থানীয়রা সবুজ আকন্দের কর্মকা-ের ব্যাপারে অভিযোগ করে জানান, উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দ দিন দিন বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। তিনি সরকার নির্ধারিত ফি’র চেয়ে কয়েকগুণ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। সেবাগ্রহীতাদের নানা ধরণের হয়রানি করেন। এ বিষয়ে তার বিরুদ্ধে পরিষদ কর্তৃপক্ষ কোন ধরণের ব্যবস্থা নেয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ইউপি সদস্য বলেন- উদ্যোক্তা সবুজের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ নতুন নয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তার এমন অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি। এদিকে জানা গেছে, গত মে মাসে সবুজ প্রায় ৩’শ সনদ বিতরণ করেছেন। কিন্তু সরকারি ফি নেয়ার সময় সবুজ সেবাগ্রহীদের কোন ধরণের রশিদ প্রদান করেন না। এরকম প্রতারণা করে আসছে প্রতিনিয়ত। এসব অনিয়ম করে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। সবুজের এমন অনিয়ম, দুর্নীতির কর্মকা-ের ঘটনার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগি ও স্থানীয়রা। এসব অনিয়মের বিষয় অস্বীকার করে উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দ শরীফ জানান, আমি কারো থেকে সনদে সরকারি ফি ছাড়া অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেনি। যা শুনছেন সব মিথ্যা ও বানোয়াট। আপনি (সাংবাদিক) আমার অফিসে আসুন, সব বুঝিয়ে দিব। চা খেয়ে যান। আসেন, দেখা করুন। সাক্ষাতে কথা বলি। উদ্যোক্তা সবুজ আকন্দের এমন কর্মকা-ের বিষয়টি স্বীকার করে গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বাবলু বলেন- ‘আমি জানি, ছেলেটি খারাপ’। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. ইশরাত জাহান জানান- এমন অভিযোগের বিষয় আমার জানা নেই এবং কেউ অভিযোগ করেনি। আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleনতুন সেনাপ্রধান এসএম শফিউদ্দিন আহমেদ
Next articleভূঞাপুরে মাদকাসক্ত ছেলেকে পুলিশে দিলেন বাবা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।