জয়নাল আবেদীন: রংপুরের তারাগঞ্জে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের দামোদরপুর শাখার অতিথিশালা থেকে হাফিজা বেগম (৩২) নামের এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই গৃহবধূ ব্রাকে কর্মরত তার স্বামী নূর আলমকে খুঁজতে গিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে দাবি করছে সেখানকার কর্মচারীরা।

বুধবার দুপুরে উপজেলার বুড়িরহাট বাজার সংলগ্ন ব্রাকের দামোদরপুর শাখার একটি কক্ষ থেকে ঝুঁলন্ত অবস্থায় ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার হয়।হাফিজা বেগম দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের তৈয়ব আলীর মেয়ে। তার স্বামী ব্রাকের দামোদরপুর শাখায় পে্রেোগ্রাম অর্গানাইজার পদে কর্মরত।২০১০ সালে দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার বড় পরমেশ্বরপুর গ্রামের মৃত হাফিজার উদ্দিনের ছেলে নূর আলমের সাথে চিরিরবন্দর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের হাফিজা বেগমের বিবাহ হয়। বিয়ের চার বছরের মাথায় ছেলে সন্তান জন্ম দেন হাফিজা। কিন্তু ছয় বছর বয়সে তাদের সন্তান মারা যান। এরপর থেকে তাদের সংসারে অশান্তি নেমে আসে। প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লাগত।পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নুর আলম ও তার স্ত্রী হাফিজা খাতুন ছয় মাস থেকে তারাগঞ্জের কুর্শা ইউনিয়নের বসপাড়া গ্রামের জবুর আলীর বাসায় ভাড়া রয়েছেন। প্রায় তাদের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লাগত। গত শুক্রবার স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হলে হাফিজা অভিমান করে তার বাবার বাড়িতে চলে যায়। পরে মঙ্গলবার রাতে ভাড়া বাসায় ফিরে আসেন। বুধবার সকালে স্বামীর খোঁজে ব্রাকের দামোদরপুর শাখায় যান হাফিজা। স্বামীকে অফিসে না পেয়ে সেখানকার অতিথিশালায় ঢুকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুঁলে আত্মহত্যা করে।এ ঘটনার জন্য ব্রাকের কর্মচারীরা নাম না প্রকাশের শর্তে হাফিজার স্বামী নুর আলমের পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়া ও পারিবারিক অশান্তিকে দুষছেন। এ বিষয়ে নুর আলম সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার সময় আমি অফিসে উপস্থিত ছিলাম না। কখন কিভাবে অফিসে এসে হাফিজা আত্মহত্যা করেছে, তা আমার জানা নেই। অফিস স্টাফরাই ভালো বলতে পারবেন।নিহতের বাবা তৈয়ব আলী অভিযোগ বলেন, বিয়ের পর হতে নানাভাবে আমার মেয়ে হাফিজাকে নুর আলম নির্যাতন করে আসছে। একটি ছেলে সন্তান জন্মের ৬ বছর পরে মারা যান। সেই সময় হতে আরও বেশী নির্যাতন শুরু করেন নুর আলম। আমার মেয়ের মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক বিচার দাবি করছি।ব্রাকের দামোদরপুর শাখা ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, সকালে হাফিজা অফিসে এসে আমার সাথে স্বাভাবিক ভাবে তাদের পারিবারিক বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। এরপর অফিসের গেষ্ট রুমে ঢুকে কখন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে, তা আমরা কেউ জানিনা। গেষ্ট রুমের দরজা বন্ধ দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে ঝুঁলন্ত থাকা অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে। এব্যাপারে তারাগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফারুক আহম্মদ বলেন, খবর পেয়ে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল করা হয়। পরে ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে ।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে হটলাইন নাম্বারে যোগাযোগ করলে দ্রুত বাসায় পৌঁছে যাবে ফ্রী অক্সিজেন
Next articleসোনারগাঁওয়ে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার দাবীতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।