জয়নাল আবেদীন: প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় বাড়ী থেকে বান্ধবীকে দিয়ে ডেকে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ ও নির্মম নির্যাতনে হত্যার অভিযোগে দাফনের ১৫ দিন পর কবর থেকে ইসরাত জাহান মীম (২০) নামে এক কলেজছাত্রীর মরদেহ উত্তোলন করা হয়েছে।

বুধবার সকালে আদালতের নির্দেশনায় নগরীর মুন্সিপাড়া কবরস্থান থেকে তার লাশ উত্তোলন করা হয়।এসময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও মামলার তদন্তকারী কর্মকমর্তা উপস্থিত ছিলেন।পুলিশ ও পরিবারসূত্র বলছে,আমাশু কুকরুল এলাকার সবজি বিক্রেতা আব্দুল মালেকের মেয়ে রংপুর সরকারি সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ইসরাত জাহান মীমকে স্থানীয় বখাটে আলআমিন ওরফে টাইগার দীর্ঘদিন থেকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো।প্রেমের প্রস্তাবে সায় না দেয়ায় মীমের উপর প্রতিশোধ নেয়ার প্ল্যান করে আলয়ামিন ওরফে টাইগার এরপর তারবন্ধু মুন্না ও তারবোন আইভীকে দিয়ে মীমকে ডেকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

নিহতের ফুপু শারমিন আক্তার জানান, ৭ জুন হত্যাকান্ডের দিন মীমকে ডাকতে আইভী বাড়ীতে বারবার আসে।পরে মীমের মা তাকে জিজ্ঞেস করলে সে হাঁটতে যাবার কথা বললে দুজনে হাঁটতে বের হয়।পরে রাত হলেও বাসায় না ফেরায় খোজাখুজি শুরু করে পরিবারের সদস্যরা।আইভীর বাড়ীতে গিয়ে দেখে বাড়ীতে তালা দেয়া।পরে খোজাখুজির এক সময় রাত সাড়ে দশটায় দেখে আইভী,তার মা,ও তার ভাই মুন্না ওদিক রাস্তা দিয়ে আসছে।তাদের জিজ্ঞেস করলে তারা বলে সে তো সন্ধ্যায় বাড়ী ফিরছে।এরপর অনেক খোজাখুজি করার পরেও তাকে আর পাওয়া যায়না।পরে ভোরে পৌনে ছয়টায় মসজিদের মোয়াজ্জিন লোকমান হোসেন পুকুরে লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার দেন ।এরপর লোকজন এসে লাশ উদ্ধার করে।পরে এলাকার লোকজন তাড়াহুড়ো করে স্থানীয় কবরস্থান রেখে দূরে মুন্সিপাড়া কবরস্থানে দাফন করে ফেলে।ঘটনার পর এলাকায় কানাঘুষা শুরু হলে নিহতের মা নার্গিস বেগম ১৬ জুন রংপুর মেট্রোপলিটন চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত (পরশুরাম) এ মামলা করেন।

শুনানি শেষে আদালত পরশুরাম থানাকে এজাহার গ্রহন করতে নির্দেশ দেন বিচারক শেখ জাবিদ।আদালতের নির্দেশে ওইদিনই মামলা গ্রহন করে পুলিশ।পরেরদিন আল আমিন,মুন্না ও আইভীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।পরে ১৮ তারিখে লাশ উত্তোলনের আদেশ ও ১৯ তারিখে আসামীদের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।নার্গিস বেগম আরও জানান,দাফনের আগে গোসল করানোর সময় মীমের খালা ও চাচী মাথা,গলা ও শরীরে নির্যাতনের দাগ দেখতে পায় কিন্ত এলাকার কিছু লোকজনের চাপে বলার সাহস পায়না।এসময় তার মেয়ের হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবি করে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি।পরশুরাম থানার ওসি হিল্লোল রায় জানান,আমরা ৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করেছি।এ মামলায় এখনো তদন্ত চলছে। যারাই জড়িত থাকবে তাদের গ্রেফতার করা হবে।

Previous articleরংপুরে করোনায় একদিনে নতুন আক্রান্ত ২৬৬
Next articleঠাকুরগাঁওয়ে আবারও লকডাউন ঘোষণা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।