সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় পাথার প্রান্তরে সাবমার্জিবল পাকা সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সহজ ও দ্রুত করে দিয়েছে। বিভিন্ন এলাকার উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে আরো নতুন সাবমার্জিবল পাকা সড়ক নির্মাণ করা হচ্ছে।

উল্লাপাড়া এলজিইডি এর বাস্তবায়ন করছে। উল্লাপাড়া উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের তিনটি ইউনিয়নের প্রায় পুরো এলাকা বর্ষাকালে প্রতি বছরই স্বাভাবিক বন্যাতেই পানিতে তলিয়ে যায়। ইউনিয়ন তিনটি হলো- উধুনিয়া , বড় পাঙ্গাসী ও মোহনপুর । প্রায় মাস চারেক সময় মাঠ ঘাটের পাশাপাশি বন্যার পানিতে তলিয়ে থাকে সড়ক পথগুলো। এসময় চলাচলের একমাত্র বাহন হয় নৌকা। আবার শুকনো মওসুমে কাঁচা সড়ক পথে চলাচল করতে হয় । এতে সহজ ও দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা থেকে ইউনিয়ন তিনটির গ্রাম জনপদগুলো পিছিয়ে ছিলো। এলজিইডি থেকে সহজ ও দ্রুত উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে বেশ ক্#৩৯;টি সাবমার্জিবল পাকা সড়ক নির্মাণ করা হয়। এ সড়কগুলো বর্ষাকালে পানিতে ডুবে থাকে। আবার পানি নামতেই এ সড়কে চলাচল শুরু হয়। সাবমার্জিবল পাকা সড়ক নির্মাণে পাথার প্রান্তরের বিভিন্ন এলাকার সাথে উপজেলা সদরসহ অন্যান্য এলাকার সহজ ও দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। এসব সড়কে যাএীবাহী বিভিন্ন বাহন ছাড়াও মালামালবাহী সব ধরনের বাহন চলাচল করে। উল্লাপাড়া এলজিইডি অফিস সুএে, গোটা উপজেলায় এরই মধ্যে বিভিন্ন এলাকায় ২১ টি সাবমার্জিবল সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে । সব মিলিয়ে এর দৈঘ্যের পরিমাণ প্রায় ৩৭ কিলোমিটার ( ৩৬ দশমিক ৭৪০ মিটার)। সড়কগুলো হলো- গয়হাট্রা- নওগা ভায় বিনায়েকপুর সড়ক, কৃষকগঞ্জ জিসি-তালগাছি ভায়া নলসোন্দা হাট সড়ক, সোনতলা-তারাবাড়িয়া সড়ক, কৃষকগঞ্জ জিসি-সলপ ইউপি হেল্ধসঢ়;থ কমপ্লেক্স সড়ক, মাটিকোড়া ভায়া ঈদগাহ মাঠ সড়ক, সলপ পাকা রাস্তা-গোবিন্দপুর সড়ক, গয়হাট্টা জিসি-বড়পাঙ্গাসী ইউপি সড়ক, মোহনপুর ইউপি অফিস-কালিয়াকৈড় হাট, গয়হাট্টা কুচিয়ামারা পাকা রাস্তা-গয়হাট্টা কলেজ ভায়া সেনগাঁতী সড়ক, সলপ চরপাড়া মোড়-বেলকুচি সড়ক, চন্দ্রগাঁতী জিপিএস-ছোট কোয়ালিবেড় মাজার সড়ক, গয়হাট্টা জিসি-হাওড়া এফসিডি সড়ক, সাতবিলা উত্তরপাড়া-হাজীপুর জিপিএস সড়ক, চকখাদুলী আরএনএইচ-বড়পাঙ্গাসী হালদারপাড়া সড়ক, কুচিয়ামারা আরএনএইচ-উধুনিয়া জিসি সড়ক, সলপ কলেজ-ছোট ভাবকী সড়ক, মধুকোলা- বনমালি প্রতাপ সড়ক, উধুনিয়া ইউপি-বিনায়েকপুর হাট সড়ক, চরডিগ্রীরচর ব্রীজ-নলসোন্দা হাট সড়ক, মোহনপুর রেলগেট-বর্ন্ধনগাছা সড়ক ও সাতবিলা-দত্তপাড়া সড়ক। আরো জানা যায়, উপজেলার উধুনিয়া ও বাঙ্গালা ইউনিয়নে তিনটি সাবমার্জিবল সড়কের মধ্যে কুচিয়ামারা-উধুনিয়া সড়কটির নির্মান কাজ হাল সময়ে শেষ হয়েছে। এর পিছনে ব্যয় হয়েছে প্রায় ২ কোটি ২৮ লাখ ৮ হাজার টাকা। ২ কোটি ২৩ লাখ ৬ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে খোদ্দগজাইল ও ২ কোটি ৩২ লাখ ৩৬ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে মধুকোলা সাবমার্জিবল সড়ক নির্মান কাজ চলমান রয়েছে। উল্লাপাড়া এলজিইডি থেকে বিভিন্ন এলাকায় আরো ক্#৩৯;টি নতুন সাবমার্জিবল পাকা সড়ক নির্মানের পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানা যায়। গত মঙ্গলবার (২২ জুন) দুপুরে চয়ড়া থেকে খোর্দ গজাইল বাজার সাবমার্জিবল পাকা সড়ক নির্মাণ কাজ করতে দেখা গেছে। এলাকার নানা পেশার জনগণ সড়কটির নির্মাণ কাজ ভীড় জমিয়ে দেখছে। এরা জানায় এ সড়কটি নির্মান হলে এলাকার জনগন সহজেই উপজেলা সদর সহ বিভিন্ন এলাকায় যেতে পারবে। সড়কটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে তাদের এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটবে। গড়ে উঠবে সহজ ও

দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা । উপজেলার হাওড়া থেকে পাঙ্গাসী সাবমার্জিবল সড়ক পথে বহু সংখ্যক অটোভ্যান রিকসা যাত্রী নিয়ে চলাচল করে । প্রতিবেদককে সড়কটিতে চলাচলকারী একাধিক অটো ভ্যান চালক বলেন, তারা এলাকায় অটো ভ্যান চালিয়ে দিনে ৫ থেকে ৬শ টাকা আয় করছে। উপজেলা প্রকৌশলী মাঈন উদ্দিন বলেন, উল্লাপাড়ার পশ্চিমাঞ্চলে ক’টি ইউনিয়ন এলাকা স্বাভাবিক বন্যাতেই পানিতে তলিয়ে যায়। এছাড়া সলপ ইউনিয়নে বেশ কিছু সড়ক স্বাভাবিক বন্যাতে পানিতে ডুবে থাকে। চলনবিল অধ্যাষিত উল্লাপাড়া পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক গুলো বন্যায় ভাঙ্গন ও ক্ষতি যেন না হয় এর জন্য সাবমার্জিবল সড়ক গুলো নির্মান করা হয়েছে। তার বিভাগ থেকে আরো ক’টি সাবমার্জিবল সড়ক নির্মানে পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানান।

Previous articleশার্শায় লকডাউনে সব কিছু থেমে গেলেও থামেনি এনজিওর কিস্তি আদায়
Next articleবাউফলে চার লাখ টাকার অবৈধ বাঁধাজাল জব্দ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।