ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার দেবিনগরে মহানন্দা নদীতে ভাঙন শুরু হয়েছে। এতে হুমকির মুখে পড়েছে কৃষিজমি ও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা।
গত বছর ভাঙনে অনেক আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নেওয়া না হলে এবার বন্যার মৌসুমেও অনেক আবাদি জমি নদীতে চলে যেতে পারে।
স্থানীয় বাসিন্দা শাহিন আক্তার বলেছেন, ‘গতবার নদীভাঙনে আমার এক বিঘা আবাদি জমি নদীতে নেমে গেছে। এবার যদি পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙন রোধে ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে আমার আরও অনেক জমি নদীতে হারিয়ে যাবে।’
ওই এলাকার আরেক বাসিন্দা শাহিন জানিয়েছেন, এ বছর বন্যায় সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে আছে দিলজান হাজীর টোলা, বাসেদ মন্ডলের টোলা ও সামশুদ্দিন মন্ডলের টোলা গ্রামের বাসিন্দা। মহানন্দার ভাঙনে দিশেহারা এসব এলাকার মানুষরা। নদীভাঙনে কৃষিজমি হারিয়ে পথে বসেছেন অনেকেই। এখন ভিটেমাটি হারনোর শঙ্কায় দিন গুনছেন ওই গ্রামের মানুষরা।
জমসেদ আলী নামের এক গ্রামবাসী জানান, বর্তমানে দেবিনগর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড থেকে ভাঙন শুরু হয়েছে। ভাঙন রোধে ব্যবস্থা না নিলে এই ইউনিয়নের ধুলাউড়ি হাট, দেবীনগর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ, দাখিল মাদ্রাসা, দেবীনগর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, দেবীনগর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, দিয়াড় মহাবিদ্যালয়, ইসলামিয়া মাদ্রাসাসহ অনেক স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন হতে পারে।
আফসার আলী বলেন, ‘মহানন্দা নদীর ভাঙন বন্ধ না করলে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হারিয়ে ফেলব খুব শিগগিরই।’
ইউপি সদস্য (স্থানীয়) বকুল হোসেন বলেন, ‘নদীভাঙনের কথা চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।’
ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বিশ্বাস বলেছেন, ‘নদী ভাঙনের বিষয়ে অবগত আছি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণকালে নদীভাঙন সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়ছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।’

Previous articleপাঁচবিবিতে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিটে রোগীর আত্মীয়-স্বজনদের অবাধে চলাফেরা !
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।